(৬২:৯) হে ঐ সব লোক, যারা ঈমান এনেছো, জুম’আর দিন ১৪ যখন নামাযের জন্য তোমাদের ডাকা হয় তখন আল্লাহর যিকরের দিকে ধাবিত হও এবং বেচাকেনা ছেড়ে দাও৷ ১৫ এটাই তোমাদের জন্য বেশী ভাল যদি তোমাদের জ্ঞান থাকে৷
(৬২:১০) তারপর যখন নামায শেষ হয়ে যায় তখন ভূ-পৃষ্ঠে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ সন্ধান করো ১৬ এবং অধিক মাত্রায় আল্লাহকে স্মরণ করতে থাকো৷ ১৭ আশা করা যায় তোমরা সফলকাম হবে৷ ১৮
(৬২:১১) আর যে সময় তারা ব্যবসায় ও খেল তামাশার উপকরণ দেখলো তখন তারা তোমাকে দাঁড়ান অবস্থায় রেখে ১৯ সেদিকে দৌড়ে গেল৷ তাদের বলো, আল্লাহর কাছে যা আছে তা খেল-তামাশা ও ব্যবসায়ের চেয়ে উত্তম৷ ২০ আল্লাহ সর্বশ্রেষ্ঠ রিযিকদাতা৷ ২১
১৪. এ আয়াতে তিনটি বিষয় বিশেষভাবে লক্ষ করার মত ৷ প্রথমটি হলো, এতে নামাযের জন্য ঘোষণা দেয়ার কথা বলা হয়েছে ৷ দ্বিতীয়টি হলো, এমন একটি নামাযের জন্য ঘোষণা দেয়ার কথা আছে যা বিশেষভাবে শুধু জুমআর দিনেই পড়তে হবে ৷ তৃতীয়টি হলো এই দুটি জিনিসের কথা এভাবে বলা হয়নি যে, তোমরা নামাযের জন্য ঘোষণা করো এবং জুমআর দিনে একটি বিশেষ নামায পড় ৷ বরং বর্ণনাভঙ্গী ও পূর্বাপর বর্ণনা স্পষ্ট করে দিচ্ছে যে, নামাযের ঘোষণা এবং জুমআর দিনের বিশেষ নামায উভয়টিই আগে থেকেই চালু ছিল ৷ তবে মানুষ ভুল করতো এই যে, জুমআর নামাযের ঘোষণা শুনেও তারা নমাযের জন্য দ্রুত অগ্রসর হওয়ার ব্যাপারে গাফলতি করতো এবং কেনাবেচার কাজেই ব্যস্ত থাকতো ৷ তাই আল্লাহ তা'আলা এ আয়াতটি শুধু এ উদ্দেশ্যে নাযিল করেছেন যে, মানুষ এই ঘোষণা এবং এই বিশেষ নামাযের গুরুত্ব উপলব্ধি করুক এবং ফরয মনে করে এবং উদ্দেশ্যে দ্রুত অগ্রসর হোক ৷ এ তিনটি বিষয়ে যদি গভীরভাবে চিন্তা করা যায় তাহলে তা থেকে এই মৌলিক, বাস্তাবতা অকাট্যভাবে প্রমাণিত হয় যে, আল্লাহ তা'আলা রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লামকে এমন কিছু নির্দেশও দিতেন যা কুরআনের মধ্যে নেই ৷ কিন্তু সেই সব নির্দেশ ও কুরআনের নির্দেশাবলীর মত অবশ্য পালনীয় ছিল ৷ বর্তমানে গোটা পৃথিবীর প্রতিটি মসজিদে প্রতিদিন পাঁচবার যে আযান দেয়া হয় সেই আযানই নামাযের জন্য ঘোষণা ৷ কিন্তু কুরআন মজীদের কোন স্থানে না এ আযানের ভাষা উল্লেখ করা হয়েছে , না মানুষকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে যে, নামাযের জন্য এভাবে আহবান জানাও ৷ এটি রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কর্তৃক নির্ধারিত জিনিস ৷ কুরআন মজীদে শুধু দুটি স্থানে একে দৃঢ়ভাবে সমর্থন করা হয়েছে ৷ প্রথমত এই আয়াতে ৷ দ্বিতীয়ত সূরা মায়েদার ৫৮ আয়াতে ৷ অনুরূপ সারা দুনিয়ার মুসলমান আজ যে জুম'আর নামায পড়ে থাকে কুরআন মজীদে তারও কোন নির্দেশ দেয়া হয়নি এবং পড়ার সময় ও নিয়ম-পদ্ধতিও বলে দেয়া হয়নি ৷ এ নামায পড়ার নিয়ম-পদ্ধতিও রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লাম কর্তৃক চালু করা ৷ কুরআনে এ আয়াতটি শুধু এর গুরুত্ব এবং অলংঘনীয়ভাবে পালন করার বিষয়টি বুঝানোর জন্যই নাযিল হয়েছে ৷ স্পষ্ট এই দলীল থাকা সত্ত্বেও যে ব্যক্তি বলে যে, শুধু কুরআনে বর্ণিত হুকুম-আহকামেই শরয়ী হুকুম-আহকাম -সে প্রকৃতপক্ষে শুধু সুন্নাতকেই অস্বীকার করে না, কুরআনকেও অস্বীকার করে ৷

এ বিষয়ে আরো বক্তব্য পেশ করার পূর্বে জুম'আ সম্পর্কে আরো কয়েকটি বিষয়ও জেনে নেয়া দরকার ৷

জুম'আ কথাটি প্রকৃতপক্ষে একটি ইসলামী পরিভাষা ৷ জাহেলী যুগে আরবের অধিবাসীরা একে 'ইয়াওমে আরূবা' বলত ৷ ইসলামী যুগে এ দিনটিকে মুসলমানদের সমাবেশের দিন হিসেবে নির্ধারিত করে এর নাম দেয়া হয় জুম'আ ৷ ঐতিহাসিকগণ যদিও বলেন যে, কা'ব ইবনে লুয়াই কিংবা কুসাই ইবনে কিলাবও এদিনটির জন্য এ নাম ব্যবহার করেছিল ৷ কারণ এ দিনেই তারা কুরাইশদের লোকজনের সমাবেশ করতেন (ফতহুল বারী) ৷ কিন্তু তার এই কাজ দ্বারা প্রাচীন এই নামের কোন পরিবর্তন হয়নি ৷ বরং সাধারণ আরবাসী এ দিনটিকে 'আরূবা'ই বলত ৷ সত্যিকার অর্থে নামের পরিবর্তন হয় তখন যখন ইসলামী যুগে এর নতুন রাখা হয় ৷

ইসলাম -পূর্ব যুগে সপ্তাহে একটি দিনকে ইবাদতের জন্য নির্দিষ্ট করা এবং তাকে জাতির প্রতীক হিসেবে নির্ধারিত করার রীতি আহলে কিতাবদের মধ্যে প্রচলিত ছিল ৷ ইহুদীরা ঐ উদ্দেশ্যে 'সাবতের(শনিবার) দিনটিকে নির্ধারিত করেছিল ৷ কারণ আল্লাহ তা'আলা এ দিনেই বনী ইসরাঈল জাতিকে ফেরাউনের গোলামী থেকে মুক্তি দিয়েছিলেন ৷ খৃস্টানরা নিজেদেরকে ইহুদীদের থেকে আলাদা করে দেখানোর জন্য রবিবার দিনকে তাদের জাতীয় প্রতীক হিসেবে নির্ধারিত করে ৷ যদিও এ সম্পর্কিত কোন নির্দেশ না হযরত ঈসা আলাইহিস সালাম দিয়েছিলেন না ইনজীল তথা বাইবেলে এর কোন উল্লেখ আছে ৷ তবে খৃস্টানদের বিশ্বাস হলো ক্রুশে বিদ্ধ হয়ে প্রাণ উৎসর্গ করার পর এ দিনেই হযরত ঈসা আলাইহিস সালাম কবর থেকে বেরিয়ে আসমানের দিকে গিয়ে ছিলেন ৷ এ কারণেই পরবর্তীকালে খৃস্টানরা এ দিনটিকে তাদের উপাসনার দিন হিসেবে গ্রহণ করে ৷ তারপর ৩২১ খৃস্টাব্দে রোমান সম্রাজ্য একটি নির্দেশের দ্বারা এ দিনটিকে সাধারণ ছুটির দিন হিসেবে ঘোষণা করে ৷ এ দুটি জাতি থেকে নিজ জাতিকে আলাদা করার জন্য ইসলাম এ দুটি দান বাদ দিয়ে জুম'আর দিনকে সামষ্টিক ইবাদতের জন্য নির্দিষ্ট করেছে ৷

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস ও হযরত আবু মাসউদ আনসারীর বর্ণনা থেকে জানা যায়, হিজরাতের কিছুকাল পূর্বে পবিত্র মক্কাতেই নবী সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লামের ওপর জুম'আর ফরয হওয়ার বিধান নাযিল হয় ৷ কিন্তু সে সময় তিনি এ নির্দেশের ওপর আমল করতে পারতেন না ৷ কারণ মক্কায় সামষ্টিক কোন ইবাদত করা সম্ভব ছিল না ৷ তাই যেসব লোক নবীর (সা) আগে মদীনায় হিজরাত করেছিলেন তিনি তাদের নির্দেশ পাঠিয়েছিলেন যে, তারা যেন সেখানে জুম'আ কায়েম করে ৷ অতএব প্রথম দিকে হিজরাতকারীদের নেতা হযরত মুস'আব ইবনে উমায়ের ১২ জন লোক নিয়ে মদীনায় সর্বপ্রথম জুম'আর নামায আদায় করেন ৷ (তাবারানী, দারু কুতনী) ৷ হযরত কা'ব ইবনে মালেক এবং ইবনে সিরীনের বর্ণনা মতে এরও পর্বে আনসারগণ আপনা থেকেই (রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নির্দেশ পৌছার পূর্বে) সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে, তারা সবাই মিলে সপ্তাহে একদিন সামাষ্টিকভাবে ইবাদত করবেন ৷ এ উদ্দেশ্যে তাঁরা ইহুদীদের সাবত এবং খৃস্টানদের রবিবার বাদ দিয়ে জুম'আর দিনকে মনোনীত করেছিলেন এবং বনী বায়দা এলাকায় হযরত আসআদ ইবনে যুরারা প্রথম জুম'আ পড়েছিলেন ৷ এতে ৪০ ব্যক্তি শরীক হয়েছিল (মুসনাদে আহমাদ, আবু দাউদ, ইবনে মাজা, ইবনে হিব্বান , আবদ ইবনে হুমায়েদ, আবদুর রাযযাক, বায়হাকী) ৷ এ থেকে জানা যায় ইসলামী জনতার আবেগ অনুভূতি তখণ এমন একটি দিন থাকার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করছিল যেদিন অধিক সংখ্যাক মুসলমান একত্র হয়ে সামষ্টিকভাবে ইবাদত করবে ৷ তা শনিবার ও রবিবার থেকে আলাদা কোন দিন হওয়াটিও ইসলামী রুচি ও মেজাজ- প্রকৃতিরই দাবী ছিল ৷ যাতে মুসলমানদের জাতীয় প্রতীক ইহুদী ও খৃষ্টানদের জাতীয় প্রতীক থেকে আলাদা থাকে ৷ এটা সাহাবা কিরামের ইসলামী মানসিকতার একটি বিস্ময়ক কীর্তি ৷ অনেক সময় নির্দেশ আসার পূর্বে তাদের এই রুচি ও মেজাজ- প্রকৃতিই বলে দিতো যে, ইসলামের মেজাজ ও প্রকৃতি অমুক জিনিসের দাবী করছে ৷

হিজরাত করার পর রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সর্বপ্রথম যে কাজগুলো করেন জুম'আর নামায কায়েম করা তার অন্যতম ৷ পবিত্র মক্কা নগরী থেকে হিজরাত করে সোমবার দিন তিনি কুবায় উপনীত হন, চারদিন সেখানে অবস্থান করেন এবং পঞ্চম দিন জুম'আর দিনে সেখানে থেকে মদীনার দিকে রওয়ানা হন ৷ পথিমধ্যে বনী সালেম ইবনে আওফের এলাকায় জুম'আর নামাযের সময় হয় ৷ সেখানেই তিনি প্রথম জুম'আর নামায পড়েন ৷ (ইবনে হিশাম) ৷

এ নামাযের জন্য রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সূর্য পশ্চিম দিকে হেলে পড়ার পরের সময় নির্দিষ্ট করেছিলেন অর্থাৎ ঠিক যোহরের নামাযের সময় ৷ হিজরাতের পূর্বে হযরত মুসআব ইবনে উমায়েরকে তিনি যে লিখিত নির্দেশ পাঠিয়েছিলেন তাতে বলেছিলেনঃ

-------------------------

"জুম'আর দিন সূর্য যখন মাথার ওপর থেকে পশ্চিম দিকে হেলে পড়বে তখন দুই রাকআত নামাযের সাহায্যে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন কর ৷ " (দারু কুতনী) ৷

হিজরাতের পরে তিনি মৌখিকভাবেও এ নির্দেশ দিয়েছেন এবং কার্যতও ঐ সময়ে জুম'আর নামায পড়াতেন ৷ হযরত আনাস (রা) হযরত সালামা ইবনে আকওয়া (রা) , হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ (রা) , হযরত যুবায়ের ইবনুল আওয়াম (রা) , হযরত সাহল (রা) ইবনে সা'দ, হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ, (রা) , হযরত আম্মার (রা) ইবনে ইয়াসির, এবং হযরত বেলাল (রা) , থেকে হাদীস গ্রন্থসমূহে এ বিষয়ে বিভিন্ন বর্ণনা এসেছে ৷ ঐ সব বর্ণনায় আছে সূর্য মাথার ওপর থেকে হেলে পড়ার পর নবী (সা) জুম'আর নামায পড়তেন ৷ (মুসনাদে আহমাদ, বুখারী, মুসলিম, আবু দাউদ, নাসায়ী, তিরমিযী) ৷

নবী সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লামের কাজ -কর্ম থেকে এ বিষয়টিও প্রমাণিত যে, জুম'আর দিন তিনি যোহরের নামাযের পরিবর্তে জুম'আর নামায পড়াতেন ৷ এ নামায ছিল মাত্র দু'রাকআত ৷ নামাযের আগে তিনি খুতবা দিতেন ৷ এটা ছিল জুম'আর নামায এবং অন্যান্য দিনের যোহরের নামাযের মধ্যে পার্থক্যসূচক ৷ হযরত উমর রাদিয়াল্লাহ আনহু বলেনঃ

------------------

"তোমাদের নবী সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লামের মুখ নিসৃতবাণী অনুসারে মুসাফিরের নামায দুই রাকআত, ফজরের নামায দু রাকআত এবং জুমআর নামায দুই রাকআত ৷ এটা কসর নয়, বরং পূর্ণ নামায ৷ আর খোতবা থাকার কারণে জুম'আর নামায সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে ৷ "

এখানে যে আযানের উল্লেখ করা হয়েছে তা খোতবার বেশ আগে যে আযানের মাধ্যমে মানুষকে জুম'আর নামাযের সময় আরম্ভ হওয়ার বিষয়টি অবগত করা হয় সে আযান নয়, বরং খোতবার ঠিক আগে যে আযান দেয়া হয় সেই আযান ৷ হযরত সায়েব (রা) ইবনে ইয়াযীদ কর্তৃক বর্ণিত একটি হাদীসে উল্লেখ করা হয়েছে যে , রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লামের যুগে শুধু একটি আযান দেয়া হতো ৷ আর তা দেয়া হতো ইমাম মিম্বরে উঠে বসার পর ৷ হযরত আবু বকর (রা) ও হযরত উমরের (রা) যুগেও এ কাজটিই করা হয়েছে ৷ অতপর হযরত উসমানের (রা) সময়ে জনবসতি বৃদ্ধি পেলে তিনি আরো একটি আযান দেয়ানো শুরু করেন ৷ মদীনার বাজারে অবস্থিত তাঁর যাওরা নামক বাড়ীতে এ আযান দেয়া হতো ৷ (বুখারী, আবু দাউদ, নাসায়ী, তাবারানী) ৷
১৫. এই নির্দেশের মধ্যে উল্লেখিত (যিকর) শব্দের অর্থ হচ্ছে খোতবা ৷ কারণ, আযানের পরে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রথম যে কাজটি করতেন তা ছিল খোতবা ৷ তিনি সবসময় খোতবার পারে নামায পড়াতেন ৷ হযরত আবু হুরাইরা বর্ণনা করেছেন যে, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ "জুম'আর ফেরেশতাগণ নামাযের জন্য আগমণকারী ব্যক্তির নাম তাদের আগমনের পরম্পরা অনুসারে লিখতে থাকেন ৷ অতপর ইমাম যখন খোতবার জন্য দাঁড়ান তখন তাঁর নাম লেখা বন্ধ করে দেন এবং যিকর (অর্থাৎ খোতবা) শুনতে মনোনিবেশ করেন" (মুসনাদে আহমাদ, বুখারী, মুসলিম, আবু দাউদ, তিরমিযী, নাসায়ী ৷ ) ৷ এ হাদীস থেকেও প্রমাণিত হয় যে, যিকর অর্থ খোতবা ৷ কুরআনের বর্ণনাভঙ্গী থেকেও এ অর্থের ইংগিত পাওয়া যায় ৷ কুরআনে প্রথমে বলা হয়েছেঃ "আল্লাহর যিকিরের দিকে ধাবিত হও ৷ " পরে বলা হয়েছেঃ "তারপর নামায শেষ হয়ে গেলে ভু-পৃষ্ঠে ছড়িয়ে পড়ো" ৷ এ থেকে জুম'আর দিনের কাজের যে পরম্পরা বুঝা যায় তা হচ্ছে প্রথম আল্লাহর যিকির এবং তারপর নামায ৷ মুফাস্সিরগণও এ বিষয়ে একমত যে, যিকির অর্থ হয় খোতবা, নয়তো খোতবা ও নামায উভয়টাই ৷

খোতবার জন্য (যিকরুল্লাহ-আল্লাহর যিকির) শব্দ ব্যবহার করায় আপনা থেকেই এ অর্থ প্রকাশ পায় যে, খোতবার মধ্যে এমন সব বিষয় থাকতে হবে যা আল্লাহর স্মরণের সাথে সম্পর্কিত ৷ যেমনঃ আল্লাহর তারিফ ও প্রশংসা ও তাঁর রসূলের প্রতি দরুদ ও সালাত, তাঁর হুকুম আহকাম তাঁর শরীয়াত অনুসারে আমলের শিক্ষা ও উপদেশ এবং তাঁকে ভয় করেন এমন সব নেক বান্দাদের প্রশংসা ইত্যাদি ৷ এ কারণে যামাখশারী কাশশফে লিখেছেন যে, খোতবার জালেম শাসকদের তারিফ ও প্রশংসা করা কিংবা তাদের নাম উল্লেখ করা এবং তাদের জন্য দোয়া করার "যিকরুল্লাহ"র সাথে দূরতম সম্পর্কেও নেই ৷ বরং তা "যিকরুশ শাইতান"-শয়তানের যিকির হিসেবে পরিগণিত ৷

" আল্লাহর যিকিরের দিকে ধাবিত হও, অর্থাৎ দৌড়িয়ে আসা নয় ৷ বরং এর অর্থ হলো, তাড়াতাড়ি সেখানে পৌছার চেষ্টা করো ৷ আমাদের ভাষায়ও আমরা এ ধরনের অনেক কথা বলে থাকি ৷ এসব কথার অর্থ হয়ে থাকে তৎপরতা দেখানো ৷ দৌড়ানো অর্থে তা ব্যবহার করা হয় না ৷ অনুরূপ আরবীতেও () শব্দ দ্বারা শুধু দৌড়ানোই বুঝায় না ৷ কুরআনের অধিকাংশ স্থানে () শব্দটি প্রচেষ্টা চালানো এবং চেষ্টা -সাধনা করা অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে ৷ যেমনঃ

------------------------

মুফাস্সিরগণও সর্বসম্মতভাবে এ শব্দটিকে গুরুত্ব আরোপ করা অর্থে গ্রহণ করেছেন তাঁদের মতে () অর্থ হলো, আযান শোনার পর মানুষ অবিলম্বে মসজিদে পৌছার চিন্তা করতে থাকবে ৷ ব্যাপারটা শুধু এতটুকু নয়, বরং নামাযের জন্য দৌড়িয়ে যাওয়ার ব্যাপারে হাদীসে স্পষ্ট ভাষায় নিষেধ করা হয়েছে ৷ হযরত আবু হুরাইরা (রা) বর্ণনা করেছেন , রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ নামায শুরু হলে ধীরে সুস্থে ও স্থিরচিত্তে গাম্ভির্যের সাথে নামাযে শরীক হওয়ার জন্য অগ্রসর হও, দৌড়িয়ে শরীক হয়ো না ৷ এভাবে অগ্রসর হয়ে যতটা নামায পাবে তাতে শরীক হবে এবং যতটা ছুটে যাবে তা পরে পূরণ করে নেবে ৷ (সিহাহ সিত্তাহ) হযরত আবু কাদাতা আনসারী (রা) বলেনঃ একবার আমরা নবীর (সা) সাথে নামায পড়ছিলাম ৷ হঠাৎ আমরা লোকজনের দৌড়দৌড়ি করে চলার শব্দ শুনতে পেলাম ৷ নামায শেষ করে নবী(সা) ঐ লোকগুলোকে জিজ্ঞেস করলেন, এসব কিসের শব্দ শুনতে পাচ্ছিলাম? তারা বললঃ নামাযে শরীক হওয়ার জন্য আমরা দৌড়িয়ে দৌড়িয়ে আসছিলাম ৷ তিনি বললেন, এরূপ করবে না ৷ যখনই নামাযে আসবে শান্তভাবে ও স্থিরচিত্তে আসবে ৷ এভাবে ইমামের সাথে যতটা নামায পাওয়া যাবে পড়বে ৷ আর যে অংশ ছুটে যাবে তা পরে পড়ে নেনে ৷ (বুখারী, মুসলিম) ৷

'কেনা-বেচা পরিত্যাগ করো' কথাটার অর্থ শুধু কেনা-বেচাই পরিত্যাগ করা নয়, বরং নামাযের জন্য যাওয়ার চিন্তাও ব্যবস্থা ছাড়া অন্য আর সব ব্যস্ততা পরিত্যাগ করা ৷ বিশেষভাবে বেচা-কেনার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে শুধু এজন্য যে, জুম'আর দিন ব্যবসায় বাণিজ্য খুব জমে উঠতো ৷ এই দিন আশেপাশের জনপদের লোকজন একস্থানে সমবেত হতো ৷ ব্যবসায়ীরা তাদের পন্যদ্রব্য নিয়ে সেখানে পৌছত ৷ লোকজনও তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে ব্যস্ত হয়ে পড়তো ৷ কিন্তু নিষেধাজ্ঞা কেবল কেনা-বেচা পর্যন্তই সীমিত নয়, অন্যান্য সব ব্যস্ততাও এর অন্তরভুক্ত ৷ যেহেতু আল্লাহ তা'আলা পরিষ্কাভাবে ঐ সব কাজ করতে নিষেধ করেছেন তাই ফিকহবিদগণ এ ব্যাপারে ঐকমত্য পোষণ করেছেন যে, জুম'আর আযানের পর কেনা-বেনা এবং অন্য সবরকমের কাজ কারবার হারাম ৷

এ নির্দেশটি থেকে অকাট্যভাবে প্রমাণিত হয় যে, জুম'আর নামায ফরয ৷ প্রথমত আযান শোনামাত্র জুম'আর নামাযের জন্য যাওয়ার তাগাদাই তার প্রমাণ ৷ তাছাড়া জুম'আর নামাযের জন্য কেনা-বেচার মত একটা হালাল কাজ হারাম হয়ে যাওয়াও এর ফরয হওয়া প্রমাণ করে ৷ উপরন্তু জুম'আর দিন যোহরের ফরয নামায রহিত হয়ে যাওয়া এবং তার পরিবর্তে জুম'আর নামায প্রতিষ্ঠিত হওয়াও এর ফরয হওয়ার স্পষ্ট প্রমাণ ৷ কারণ, কোন ফরয কেবল তখনই রহিত হয় যখন তার চেয়ে ও অধিক গুরুত্বপূর্ণ কোন ফরয তার স্থান পূরণ করে ৷ বহু সংখ্যক হাদীসে এর সমর্থন পাওয়া যায় ৷ এসব হাদিসে রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জুম'আর নামাযের জন্য কঠোরভাবে তাকীদ করেছেন এবং স্পষ্ট ভাষায় তাকে ফরয বলে ঘোষণা করেছেন ৷ হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ বর্ণনা করেছেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ আমার মন চায়, অন্য কাউকে আমার পরিবর্তে নামায পড়াতে দাঁড় করিয়ে দেই এবং নিজে গিয়ে সেসব লোকদের ঘরে আগুন লাগিয়ে দেই যারা জুম'আর নামায পড়তে আসে না ৷ (মুসনাদে আহমাদ, বুখারী) ৷ হযরত আবু হুরাইরা (রা) , হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা) এবং হযরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রা) বলেন, আমরা জুম'আর খোতবায় নবীকে (সা) একথা বলতে শুনেছিঃ মানুষের জুম'আর নামায পরিত্যাগ করা থেকে বিরত থাকা উচিত ৷ অন্যথায় আল্লাহ তাদের মনের ওপর মোহর মেরে দেবেন এবং তারা গাফিল হয়ে যাবে ৷ (মুসনাদে আহমাদ, মুসলিম, নাসায়ী) ৷ হযরত আবুল জা'দ (রা) দামরী, হযরত জাবের (রা) ইবনে আবদুল্লাহ ও হযরত আবদুল্লাহ (রা) ইবনে আবী আওফার বর্ণিত হাদীসসমূহে নবীর (সা) যেসব বক্তব্য উদ্ধৃত হয়েছে তা থেকে জানা যায় , "যে ব্যক্তি প্রকৃত কোন কারণ ও সংগত ওযর ছাড়া শুধু বে-পরোয়া মানসিকতার কারণে পরপর তিনটি জুম'আ পরিত্যাগ করে আল্লাহ তার দিলের ওপর মোহর মেরে দেন ৷ বরং একটি হাদীসে তো এতদূর বলা হয়েছে যে, আল্লাহ তা'আলা তার দিলকে মুনাফিকের দিল বানিয়ে দেন" (মুসনাদে আহমাদ, আবু দাউদ, নাসায়ী, তিরমিযী, ইবনে মাজা, দারেমী, হাকেম, ইবনে হিব্বান , বাযযার , তাররানী ফিল কাবীর) ৷ হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ বর্ণনা করেন যে, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি সাল্লাম বলেছেনঃ "আজ থেকে শুরু করে কিয়ামত পর্যন্ত তোমাদের ওপর জুম'আর নামায ফরয ৷ যে ব্যক্তি তাকে মামুলি ব্যাপার মনে করে এবং তার গুরুত্ব স্বীকার না করে পরিত্যাগ করবে আল্লাহ যেন তার অবস্থা ভাল না করেন এবং তাকে কোন প্রকার বরকতও না দেন ৷ কান পেতে শুণে নাও যতক্ষণ সে তাওবা না করবে তার নামায নামায নয়, তার যাকাত যাকাত নয়, তার হজ্জ হজ্জ নয়, তার রোযা রোযা নয়, তার কোন নেক কাজ নেক কাজ নয় ৷ অতপর যে তাওবা করবে আল্লাহ তাকে ক্ষমাকারী ৷ " (ইবনে মাজা, বাযযার) প্রায় একই অর্থের একটি হাদীস তাবারানীতার 'আওসাত'গ্রন্থে উমর (রা) থেকে বর্ণনা করেছেন ৷ এ ছাড়াও বহু সংখ্যক হাদীসে নবী(সা) স্পষ্ট ভাষায় জুম'আর নামাযকে ফরয এবং অবশ্য পালনীয় হক বলে উল্লেখ করেছেন ৷ হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা) ইবনে আস বর্ণনা করেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ যারা আযান শুনতে পায় জুম'আর নামায তাদের ওপরই ফরয (আবু দাউদ, দারুকুতনী) ৷ জাবের (রা) ইবনে আবদুল্লাহ ও আবু সাঈদ খুদরী (রা) বলেনঃ "জেনে রেখো, আল্লাহ তোমাদের উপর জুম'আর নামায ফরয করেছেন" (বায়হাকী) ৷ তবে তিনি নারী, শিশু, ক্রিতদাস, অসুস্থ ব্যক্তি এবং মুসাফিরকে এ ফরয পালনের দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দিয়েছেন ৷ হযরত হাফসা বর্ণনা করেন যে, নবী (সা) বলেছেনঃ "জম'আর নামাযের জন্য বের হওয়া প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির ওপর ওয়াজিব ৷ "(নাসায়ী) ৷ হযরত তারেক ইবনে শিহাব বর্ণিত হদীসে নবী (সা) বলেছেনঃ ক্রীতদাস, নারী, শিশু, ও অসুস্থ ব্যক্তি ছাড়া জামায়েতের সাথে জুম'আ পড়া প্রত্যেক মুসলমানদের জন্য ওয়াজিব, (আবু দাউদ, ও হাকেম ৷ ) ৷ হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ বর্ণিত হাদীসে নবীর (সা) ভাষ্য হলোঃ যে ব্যক্তি আল্লাহ ও আখেরাতের দিনের প্রতি ঈমান পোষণ করে তার ওপরে জুম'আ ফরয ৷ তবে নারী, মুসাফির, ক্রীতদাস , বা অসুস্থ ব্যক্তির ওপরে জুম'আ ফরয নয় ৷ (দারু কুতনী, বায়হাকী) ৷ কুরআন ও হাদীসের এই স্পষ্ট বক্তব্যের ভিত্তিতে জুম'আর নামায ফরয হওয়া সম্পর্কে গোটা মুসলিম উম্মাহ ইজমা বা ঐকমত্য পোষণ করেছেন ৷
১৬. একথার অর্থ এ নয় যে, জুম'আর নামায পড়ার পর ভূপৃষ্ঠে ছড়িয়ে পড়া বা রিযিকের অনুসন্ধানে তৎপর হয়ে উঠা জরুরী ৷ বরং এ নির্দেশ থেকে শুধু এ কাজ করার অনুমতি বুঝায় ৷ যেহেতু জুম'আর আযান শোনার পর সব কাজ কর্ম পরিত্যাগ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল ৷ তাই বলা হয়েছে , নামায শেষ হওয়ার পর চারদিকে ছড়িয়ে পড়ার এবং যে কাজ-কর্ম করতে চাও তা করার অনুমতি তোমাদের জন্য আছে ৷ এটা ঠিক ইহরাম অবস্থায় শিকার নিষিদ্ধ করার পর "যখন ইহরাম খুলবে তখন শিকার করো" (আল মায়েদাহ, ৩) বলার মত ৷ এ কথার অর্থ এটা নয় যে, ইহরাম খোলার পর অবশ্যই শিকার করতে হবে ৷ বরং এর অর্থ হলো, ইহরাম খোলার পর শিকার করার ব্যাপারে আর কোন বাধা নিষেধ থাকে না ৷ কিংবা সূরা নিসাতে যেমন () আয়াতাংশে একাধিক বিয়ে করার অনুমতি দেয়া হয়েছে ৷ এখানে যদিও নির্দেশসূচক শব্দ () ব্যবহার করা হয়েছে ৷ কিন্তু কেউ-ই একে নির্দেশ অর্থে গ্রহণ করেননি ৷ এর থেকে মৌলিক একটি মাসায়ালার তথা সূত্র পাওয়া যায় যে, আদেশসূচক শব্দ দ্বারা সবসময় কোন জিনিস ওয়াজিব বা অবশ্য পালনীয় বলে প্রমাণিত হয় না ৷ বরং তা কখনো অনুমতি আবার কখনো কোন জিনিসকে তুলনামূকভাবে বেশী পছন্দ করা অর্থ বুঝায় ৷ এ ক্ষেত্রে কোথায় তা আদেশ অর্থে, কোথায় অনুমতি অর্থে এবং কোথায় আল্লাহর নিকট অধিক পছন্দনীয় হওয়া অর্থে ব্যবহার হয়েছে সে বিষয়টি আগের ও পরের প্রসংগ থেকে বুঝা যায় ৷ কিন্তু সর্বক্ষেত্রেই যে কাজটি ফরয বা ওয়াজিব সেই অর্থে ব্যবহৃত হয় না ৷ এ আয়াতাংশের ঠিক পরের আয়াতাংশেই বলা হয়েছে "আল্লাহকে বেশী করে স্মরণ করো" ৷ এখানেও আদেশসূচক শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে ৷ কিন্তু স্পষ্ট বুঝা যায় যে, এ শব্দ ওয়াজিব বা অবশ্য করনীয় অর্থ প্রকাশ করছে না, বরং "পছন্দনীয় হওয়া" অর্থ প্রকাশ করছে ৷ এখানে এ বিষয়টিও উল্লেখ্য যে, কুরআনে যদিও ইহুদীদের সাবত এবং খৃস্টানদের রোববারের মত জুম'আর দিনকে সাধারণ ছুটির দিন ঘোষণা করা হয়নি, কিন্তু একথা কেউ-ই অস্বীকার করতে পারে না যে, শনিবার ও ররিবার ইহূদী ও খৃস্টানদের জাতির প্রতীক জুম'আও ঠিক তেমনি মুসলমানদের জাতীর প্রতীক ৷ সুতরাং তামাদ্দুনিক বা সাংস্কৃতিক প্রয়োজনে যদি সপ্তাহের কোন দিনকে সাধারণ ছুটির জন্য মনোনীত করতে হয় তহলে ইহুদীরা যেমন স্বভাবিকভাবে শনিবারকে এবং খৃস্টানরা রোববারকে বেছে নিয়েছে তেমনি এ উদ্দেশ্যে মুসলমানরাও (যদি তাদের মন-মানস ও স্বভাব প্রকৃতিতে লেশমাত্র ইসলামী অনুভূতি বিদ্যমান থেকে থাকে) জুম'আর দিনকেই বেছে নেবে ৷ খৃস্টানরা তো তাদের নিজের দেশ ছাড়া এমনসব দেশের ওপরও তাদের রোববার চাপিয়ে দিতে দ্বিধা করেনি ৷ যেখানে খৃস্টানদের সংখ্যা নিতান্তই নগণ্য ছিল ৷ ইহুদীরা ফিলিস্তিনে তাদের ইসরাঈলী রাষ্ট্র কায়েম করলে সর্বপ্রথম যে কাজটি করেছিল তা হচ্ছে রোববারের পরিবর্তে শনিবারকে ছুটির দিন হিসেবে নির্ধারিত করা ৷ বিভাগ পূর্ব ভারতে বৃটিশ ভারত এবং মুসলিম দেশীয় রাজ্যগুলোর মধ্যে যে উল্লেখ্যযোগ্য পার্থক্য নজরে পড়ত তাহচ্ছে দেশের এক অংশে রোববারে সাপ্তাহিক ছুটি হতো এবং অন্য অংশে জুম'আর দিনে ছুটি হতো ৷ তবে যেসব জায়গায় মুসলমানদের মধ্যে ইসলামী অনুভূতি ও ভাবধারা বর্তমান থাকত না সেখানে ক্ষমতা নিজেদের হাতে আসার পারও তারা রোববারকেই বুকে জড়িয়ে রাখে যা আমরা পাকিস্তানে দেখতে পাচ্ছি ৷ আর চেতনাহীনতার মাত্রা এর চেয়েও অধিক হলে জুম'আর দিনের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করে রোববার দিন সাপ্তাহিক ছুটি চালু করা হয় ৷ মুস্তাফা কামাল তুরস্কে এ কাজটিই করেছেন ৷
১৭. অর্থাৎ নিজেদের কাজ-কর্ম ও ব্যবসায়-বাণিজ্যে ব্যস্ত হয়েও আল্লাহকে ভুলে যেও না ৷ বরং সর্বাবস্থায় তাঁকে স্মরণে রাখো এবং তাঁকেই স্মরণ করতে থাকো ৷ (ব্যাখ্যার জন্য দেখুন, তাফহীমুল কুরআন, সূরা আহযাব, টীকা , ৬৩ ) ৷
১৮. কুরআন মজীদে বেশ কিছু সংখ্যক জায়গায় একটি হিদায়াত বা দিক নির্দেশনা, কিংবা একটি উপদেশ অথবা একটি নির্দেশ দেয়ার পর (হয়তো তোমরা সফল হবে, কল্যাণ লাভ করবে) এবং (হয়ত তোমাদের প্রতি আল্লাহর রহমত বর্ষিত হবে) বলা হয়েছে ৷ এসব স্থানে "হয়ত" বা "সম্ভবত" শব্দ ব্যবহার করার অর্থ এ নয় যে, আল্লাহ তা'আলার (মা'আযাল্লাহ) কোন সন্দেহ আছে ৷ মূল ব্যাপার তা নয় ৷ বরং এটি একটি রাজকীয় বর্ণনাভঙ্গি ৷ এটা ঠিক তেমন যেন কোন দয়ালু মনিব তাঁর কর্মচারীকে বলছেন, তুমি অমুক কাজটি করো, হয়তো তোমার পদোন্নতি হবে ৷ এর মধ্যে একটি সূক্ষ্ম অদৃশ্য প্রতিশ্রুতি থাকে যার আশায় কর্মচারীটি মনযোগ দিয়ে অত্যন্ত আগ্রহের সাথে ঐ কাজটি আঞ্জাম দিতে থাকে ৷ কোন বাদশাহর মুখ থেকে তার কোন কর্মচারীর উদ্দেশ্যে একথা উচ্চারিত হলে তার ঘরে খুশীর বন্যা বয়ে যায় ৷

এখানে যেহেতু, জুম'আর নামাযের হুকুম-আহকাম বর্ণনা শেষ হয়ে গিয়েছে , তাই কুরআন, হাদীস, সাহাবীদের উক্তি এবং ইসলামের সাধারণ মূলনীতির আলোকে চারটি ফিকহী মাযহাবের জুম'আর নামায সম্পর্কে যেসব হুকুম-আহকাম বের করে সুবিন্যস্ত করা হয়েছে এখানে তার সারসংক্ষেপ বর্ণনা করা সমীচীন হবে বলে মনে হয় ৷

হানাফী মাযহাবের মতে যোহরের নামাযের সময়ই জুম'আর নামাযের সময় ৷ জুম'আ এ সময়ের পূর্বেও পড়া যেতে পারে না, পরেও পড়া যেতে পারে না ৷ প্রথম আযানের সময় থেকেই কেনা-বেচা হারাম হয়ে যায়, -ইমাম মিম্বরের ওপর বসার পর দ্বিতীয় আযান দেয়ার সময় থেকে নয় ৷ কারণ, কুরআনে শুধু () কথাটি বলা হয়েছে ৷ তাই সূর্য মাথার ওপর থেকে পশ্চিম আকাশে হেলে পড়ার পর যখন জুম'আর সময় শুরু হয় তখন জুম'আর নামাযের যে আযানটিই দেয়া হোক না কেন তা শোনার পর লোকদের কেনা-বেচা বন্ধ করে দেয়া কর্তব্য ৷ তবে সেই সময় যদি কোন ব্যক্তি ক্রয়-বিক্রয় করে তবে সেই ক্রয়-বিক্রয় অবৈধ বা বাতিল হবে না, বরং তা কেবল একটি গোনাহের কাজ হবে ৷ জুম'আর নামায প্রতিটি জনপদেই অনুষ্ঠিত হবে না, বরং শুধু "মিসরে জামে "-তে অনুষ্ঠিত হতে পারবে ৷ নির্ভরযোগ্য সংজ্ঞা অনুসারে 'মিসরে জামে' বলা হয় এমন শহরকে যেখানে বাজার আছে , নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার ব্যবস্থা আছে এবং তার জনবসতিও এত যে, যাদের ওপর জুম'আর নামায ফরয তারা সবাই যদি ঐ শহরের সর্বাপেক্ষা বড় মসজীদে সমবেত হয় তাহলে সেখানে স্থান সংকুলান হবে না ৷ যেসব লোক শহরের বাইরে বসবাস করেন তাদের জন্য শহরে এসে জুম'আর নামায পড়া কেবল তখনই ফরয যখন আযাবের শব্দ তারা শুনতে পাবে কিংবা খুব বেশী হলে শহর থেকে ৬ মাইল দূরে অবস্থিত হবে ৷ নামায মসজিদেই হতে হবে তা জরুরী নয় ৷ নামায খোলা মাঠেও হতে পারে ৷ এমন মাঠেও জুম'আর নামায হতে পারে যা শহরের বাইরে অবস্থিত হলেও মূল শহরের একটি অংশ বলে বিবেচিত ৷ যেখানে প্রত্যেক ব্যক্তির শরীক হওয়ার সাধারণ অনুমতি আছে শুধু সেখানেই জুম'আর নামায অনুষ্ঠিত হতে পারে ৷ কোন বন্ধ জায়গায় যত মানুষই একত্রিত হোক না কেন, সেখানে সবারই আসার অনুমতি না থাকলে , জুম'আর সহীহ হবে না ৷ জুম'আর নামায সহীহ হওয়ার জন্য জামায়াতে [আবু হানীফার (র) মতে] ইমাম ছাড়া কমপক্ষে তিন জন অথবা [আবু ইউসুফ (র) ও মুহাম্মাদের মতে] ইমাম সহ দুইজন এমন লোক থাকতে হবে যাদের ওপর জুম'আ ফরয ৷ যেসব ওজর থাকলে জুম'আ পড়া থেকে অব্যহতি পাওয়া যায় তা হচ্ছেঃ সফরে থাকা , অথবা এমন রুগ্ন হওয়া যে, নিজে হেঁটে মসজিদে আসার ক্ষমতা নেই ৷ অথবা দুটি পা-ই অক্ষম অথব অন্ধ , (কিন্তু ইমাম আবু ইউসূফ (র) ও মুহাম্মাদের (র) মতে অন্ধ ব্যক্তি কেবল তখনই জুমআ পড়া থেকে অব্যহতি পাবে যখন তাকে মসজিদে নিয়ে যাবার মত কোন লোক পাবে না ৷ ) অথবা কোন অত্যাচারীর পক্ষ থেকে তার জীবন ও মান-ইজ্জতহানীর কিংবা সহ্যসীমা বহির্ভূত আর্থিক ক্ষতির আশংকা থাকে অথবা প্রচন্ড বৃষ্টি অথবা কাদা পানি থাকে অথবা যদি সে বন্দী থাকে ৷ কয়েদী ও অক্ষমদের জন্য জুম'আর দিনে যোহরের নামায জামায়াতে পড়া মাকরূহ ৷ যারা জুম'আর নামায পায়নি তাদের জন্য যোহরের নামায জামায়াতে পড়া মাকরূহ ৷ খোতবা জুম'আ সহীহ হওয়ার একটি শর্ত ৷ কারণ, নবী কখনো খোতবা ছাড়া জুম'আর নামায পড়েননি ৷ আর খোতবা অবশ্যই দুটি হতে হবে এবং নামাযের আগে হতে হবে ৷ ব্যক্তি যে স্থানে বসে আছে সে স্থানে পর্যন্ত আওয়াজ পৌছুক আর না পৌছুক খোতবা দেয়ার জন্য ইমাম যখন মিম্বরের দিকে অগ্রসর হবেন তখন থেকে খোতবা শেষ না হওয়া পর্যন্ত সবরকম কথাবার্তা নিষিদ্ধ ৷ এই সময় নামাযও না পড়া উচিত ৷ (হিদায়া, ফাতহুল কাদীর, আহকামুল কুরআন, -জাসসাস আল ফিকহু আলাল মাযাহিবিল আরবায়া, উমদাতুল কারী) ৷

শাফেয়ী মাযাহাবের মতে যোহরের নামাযের সময়ই জুম'আর নামাযের সময় ৷ যখন দ্বিতীয় আযান (অর্থাৎ ইমাম মিম্বরের ওপর বসার পর যে আযান দেয়া ) হবে তখন থেকে কেনা-বেচা হারাম ও নামাযের জন্য যাওয়া ওয়াজিব ৷ তা সত্ত্বেও কেউ যদি এ সময় কেনা-বেচা করে তবে তা বাতিল বলে গণ্য হবে না ৷ এমন প্রত্যেকটি জনপদেই জুম'আ অনুষ্ঠিত হতে পারবে যেখানকার স্থায়ী বাসিন্দাদের মধ্যে ৪০ জন লোক এমন আছে যাদের ওপর জুম'আর নামায ফরয ৷ জনপদের বাইরের যেসব এলাকার লোক আযান শুনতে পায় তাদের জন্য জুম'আর নামাযে হাজির হওয়া অবশ্য কর্তব্য ৷ জনবসতির অভ্যন্তরেই জুম'আর নামায অনুষ্ঠিত হওয়া উচিত ৷ তবে জরুরী নয় যে, তা মসজিদেই পড়তে হবে ৷ যারা মরু ভূমির মধ্যে তাঁবুতে অবস্থান করে তাদের ওপরে জুম'আর ফরয নয় ৷ জুম'আ শুদ্ধ হওয়ার জন্য যাদের ওপর জুম'আ ফরয ইমাম সহ কমপক্ষে এ রকম ৪০ জন লোকের জামায়াতে উপাস্থিত থাকা অবশ্যক ৷ যেসব ওজর থাকার কারণে কোন ব্যক্তি জুম'আর নামায পড়া থেকে অব্যহতি লাভ করে তা হচ্ছেঃ সফরে থাকা অথবা কোন স্থানে চারদিন বা তার কম সময় অবস্থান করার ইচ্ছা করা, তবে সফর বৈধ হতে হবে ৷ এমন বৃদ্ধ বা রুগ্ন যে সওয়ারীতে চড়েও জুম'আয় হাজির হতে অক্ষম ৷ অন্ধ হওয়া এবং তাকে নামাযের জন্য মসজিদে নিয়ে যাওয়ার মত কোন লোক না পাওয়া ৷ প্রাণ, সম্পত্তি অথবা-মান-ইজ্জাতহানীর আশংকা থাকা ৷ বন্দী অবস্থায় থাকা ৷ তবে এই বন্দিদশা তার নিজের কোন অপরাধের কারনে না হওয়া ৷ নামাযের পূর্বে দুটি খোতবা থাকতে হবে ৷ খোতবার সময় চুপচাপ থাকা সুন্নাত, তবে কথা বলা হারাম নয় ৷ যে ব্যক্তি ইমামের এতটা কাছে বসেছে যে, খোতবা শুনতে পায় তার জন্য কথাবার্তা বলা মাকরূহ ৷ তবে সে সালামের জবাব দিতে পারে এবং রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নামের উল্লেখ শুনে উচ্চাস্বরে দরূদ পাঠ করতে পারে ৷ (মুগনিউল মুহতাজ, আল ফিকহু আলাল মাযাহিবিল আরবায়া) ৷

মালেকী মাযাহাবের মতে জুম'আর নামাযের সময় হচ্ছে সূর্য পশ্চিম দিকে হেলে পড়ার পর থেকে শুরু করে মাগরিবের এতটা পূর্ব পর্যন্ত যেন সূর্যাস্তের আগেই খোতবা ও নামায শেষ হয়ে যায় ৷ কেনা-বেচা হারাম ও নামাযের জন্য যাওয়া ওয়াজিব হয় দ্বিতীয় আযান থেকে ৷ এ সময়ের পর কোন কেনা-বেচা হলে তা অবৈধ ও বাতিল বলে গন্য হবে ৷ কেবল সেই সব জনপদেই জুম'আ অনুষ্ঠিত হতে পারে যেখানকার অধিবাসীগণ স্থায়ীভাবে সেখানে বাসস্থান তৈরী করে বসবাস করছে ৷ শীত গ্রীষ্মে তারা অণ্য কোন স্থানে চলে যায় না ৷ তারা ঐ জনপদেই তাদের প্রয়োজনীয় সবকিছুর সরবরাহ পেয়ে থাকে এবং সংখ্যার দিক দিয়ে তারা নিজেরাই নিজেদের রক্ষা করতে পারে ৷ অস্থায়ী অবস্থান স্থলে যত লোকই থাক না কেন এবং তারা যতদিনই অবস্থান করুক না কেন সেখানে জুম'আ অনুষ্ঠিত হতে পারে না যে জনপদে জুম'আ অনুষ্ঠিত হয় তার তিন মাইল দূরেত্বের মধ্যে বসবাসকারী মানুষের ওপর জুম'আর নামাযে হাজির হওয়া ফরয ৷ জুম'আর নামায কেবল এমন সব মসজীদেই অনুষ্ঠিত হতে পারে যা জনপদের ভিতরে বা সংলগ্নস্থানে অবস্থিত হবে এবং যার ইমরাত জনপদের সাধারণ অধিবাসীদের ঘরের চেয়ে নিম্নমানের হবে না ৷ এ ক্ষেত্রে কোন কোন মালেকী ফিকাহবিদ এরূপ শর্তও আরোপ করেছেন যে, মসজিদ ছাদ বিশিষ্ট হতে হবে এবং তাতে যথারীতি পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের ব্যবস্থা নেই ৷ যা কেবল জুম'আর নামায পড়ার জন্য তৈরী করা হয়েছে ৷ জুম'আর নামায সহীহ হওয়ার জন্য যাদের ওপর জুম'আর নামায ফরয ইমাম ছাড়া কমপক্ষে এ রকম ১২ জন লোকের জামায়াতে উপস্থিত থাকা জরুরী ৷ যেসব ওজর বর্তমান থাকলে কোন ব্যক্তির ওপর থেকে জুম'আর নামায পড়ার নির্দেশ রহিত হয়ে যায় তা হচ্ছেঃ সফলে থাকা অথবা সফর অবস্থায় কোন স্থানে চারদিনের কম সময় অবস্থানের নিয়ত করা ৷ এমন রুগ্ন হওয়া যে, তার পক্ষে মসজিদে আসাই অসম্ভব ৷ মা অথবা বাপ অথবা স্ত্রী অথবা সন্তান রুগ্ন ও অসুস্থ থাকা অথবা সে এমন কোন অপরিচিত রোগীর সেবা যত্ন করছে যার সেবা যত্ন করার মত আর কেউ নেই, অথবা তার কোন নিকটাত্মীয় কঠিন রোগে আক্রান্ত অথবা মরণাপন্ন ৷ যে সম্পদের ক্ষতি সে বরদাশত করতে অক্ষম এমন সম্পদের ক্ষতির আশংকা থাকা ৷ অথবা মারপিট ও বন্দীত্বের ভয়ে আত্মগোপন করে থাকা ৷ তবে এ ক্ষেত্রে শর্ত হচ্ছে তাকে মজলুম বা অত্যাচারিতের পর্যায়ভুক্ত হতে হবে ৷ প্রচণ্ড বৃষ্টি বা কাদা পানি থাকা কিংবা প্রচন্ড গরম বা ঠাণ্ডা মসজিদ পর্যন্ত যেতে বাধা হয়ে দাঁড়ালে ৷ নামাযের পূর্বে দুটি খোতবা হওয়া অত্যাবশ্যক ৷ এমনকি খোতবা যদি নামাযের পরে দেয়া হয় তাহলে নামায পুনরায় পড়া জরুরী ৷ খোতবা মসজিদের ভিতরে হতে হবে ৷ খোতবা দেয়ার জন্য ইমাম যখন মিম্বরের দিকে অগ্রসর হবেন সেই সময় নফল নামায পড়া হারাম ৷ এবং খোতবা শুরু হলে তা শোনা না গেলেও কথাবার্তা বলাও হারাম ৷ তবে খতীব যদি খোতবা বহির্ভুত কোন বাজে বা অপ্রয়োজনীয় কথা বলেন অথবা গালির উপযুক্ত নয় এমন কোন ব্যক্তিকে গালি দেন অথবা এমন কোন ব্যক্তির প্রশংসা করতে শুরু করেন যার প্রশংসা করা জায়েয নয়, অথবা খোতবার সাথে সম্পর্কহীন কোন কিছু পড়তে শুরু করেন তাহলে তার প্রতিবাদ করার অধিকার লোকজনের আছে ৷ তাছাড়া জীবনের আশংকা না থাকলে বর্তমানে বাদশাহ বা শাসকের জন্য খোতবার মধ্যে দোয়া করাও মাকরূহ ৷ যিনি নামায পড়াবেন তাঁকেই খোতবা দিতে হবে ৷ খতীব ছাড়া অন্য কেউ নামায পড়ালে সে নামায বাতিল হয়ে যাবে ৷ (হাশিয়াতুদ দুসুকী আলশ শারহিল কাবীর, আহকামুল কুরআন-ইবনে আরাবী, আল ফিকহু আলাল মাযাহিবিল আরবায়া) ৷

হাম্বলী মাযহাবের মতে জুম'আর নামাযের সময় সকাল বেলা সূর্য কিছুটা ওপরে ওঠার পর থেকে আসরের সময় শুরু হওয়া পর্যন্ত ৷ কিন্তু সূর্য পশ্চিম দিকে হেলে পড়ার আগে জুম'আর নামায পড়া শুরু জায়েয এবং পরে ওয়াজিব ও উত্তম ৷ দ্বিতীয় আযান থেকে কেনা-বেচা হারাম এবং নামাযের জন্য প্রস্তুত হওয়া ওয়াজিব হয়ে যায় ৷ এরপর কেনা-বেচা হলে তা কেনা-বেচা হয়েছে বলে ধরা হবে না ৷ যাদের ওপর জুম'আর নামায ফরয এমন ৪০ জন লোক যে স্থানে আছে কেবল সেখানেই জুম'আ অনুষ্ঠিত হতে পারে ৷ এসব লোকের স্থায়ীভাবে বাড়ীঘরে (তাঁবুতে নয়) বসবাসকারী হতে হবে ৷ অর্থাৎ শীত বা গ্রীষ্মকালে তারা কোথাও স্থানান্তরিত হয় না ৷ এ জন্য জনবসতির বাড়ী ঘর ও মহল্লাসমূহ পরস্পর সংলগ্ন হোক বা বিচ্ছিন্ন হোক তাতে কোন পার্থক্য হয় না ৷ এই জনপদের বিভিন্ন অংশের মধ্যকার দূরত্ব কয়েক মাইল হলেও যদি তা সমষ্টিগতভাবে একটি নামে পরিচিত হয় তাহলে তা একটি জনপদ বলে গণ্য হবে ৷ এ ধরনের জনপদ থেকে যারা তিন মাইল দূরত্বের মধ্যে বসবাস করে তাদের জন্য জুম'আর নামায পড়তে মসজিদে আসা ফরয ৷ জামায়াতে ইমাম সহ ৪০ ব্যক্তির উপস্থিত থাকা জরুরী ৷ নামায মসজিদেই হতে হবে এমনটি জরুরী নয় ৷ বরং খোলা মাঠেও নামায হতে পারে ৷ যেসব কারণ বর্তমান থাকলে কোন ব্যক্তির ওপর জুম'আর নামায আর ফরয থাকে না তা হচ্ছেঃ মুসাফির হওয়া, যে জনপদের লোকদের ওপর জুম'আ ফরয এমন জনপদে চারদিন বা তার কম সময় অবস্থানের ইচ্ছা করা, এমন রুগ্ন হওয়া যে সওরীতে উঠে মসজিদে আসাও অসসম্ভব, অন্ধ হওয়া- তবে সে নিজে যদি পথ হাতড়িয়ে আসতে পারে তাহলে আসবে ৷ অন্য কোন লোকের সাহায্য নিয়ে অন্ধ ব্যক্তির জন্য মসজিদে আসা ওয়াজিব নয় ৷ প্রচণ্ড ঠাণ্ডা বা গরম অথবা প্রচণ্ড বৃষ্টি বা কাদা নামাযের স্থানে পৌছতে প্রতিবন্ধক হওয়া ৷ কোন জালেমের জুলুম থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আত্মগোপন করে থাকা ৷ প্রাণ ও মান-ইজ্জতহানির আশংকা কিংবা এমন আর্থিক ক্ষতির আশংকা থাকা যা বরদাশত করা যাবে না ৷ নামাযের আগে দুটি খোতবা হতে হবে ৷ খতীবের কথা শোনা যায়, যে ব্যক্তি খতীবের এতটা নিকটে আছে খোতবার সময় তাঁর জন্য কথাবার্তা বলা হারাম ৷ তবে দূরে অবস্থিত লোক যার কাছে খতীবের আওয়াজ পৌছে না সে কাথাবার্তা বলতে পারে ৷ খতীব ন্যায়পরায়ন হোক বা না হোক খোতবার সময় সবার চুপচাপ থাকা উচিত ৷ জুমআর দিনে ঈদ হলে যারা ঈদের নামায পড়বে তাদের জন্য জুম'আর নামায পড়া ফরয নয় ৷ এ বিষয়ে হাম্বলী মযহাবের মত তিন ইমামের মত থেকে ভিন্ন (গায়তুল মুনতাহা, আল ফিকহু আলাল মাযাহিবিল আরবায়া) ৷

যে ব্যক্তির ওপর জুম'আ ফরয নয় সে যদি জুম'আর নামাযে শরীক হয় তাহলে তার নামায সহীহ হবে এবং তার ওপর যোহরের নামায আর ফরয থাকবে না ৷ এ বিষয়ে সমস্ত ফিকহবিদ একমত ৷
১৯. যে ঘটনাকে কেন্দ্র করে পূর্ববর্তী আয়াতসমূহে জুম'আর হুকুম- আহকাম বর্ণনা করা হয়েছে এটিই সেই ঘটনা ৷ হাদীস গ্রন্থসমূহে হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ , হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস , হযরত আবু হুরাইরা, হযরত আবু মালেক এবং হযরত হাসান বসরী, ইবনে যায়েদ, কাতাদা, এবং মুকাতিল ইবনে হাইয়ান থেকে ঘটনার যে বিবরণ বর্ণিত হয়েছে তা হচ্ছেঃ পবিত্র মদীনা নগরীতে সিরিয়া থেকে একটি বাণিজ্য কাফেলা ঠিক জুম'আর নামাযের সময় এসে পৌছলো এবং জনপদের লোকজন যাতে তাদের আগমনের খবর জানতে পারে সেজন্য ঢোল-বাদ্য বাজাতে শরু করলো ৷ রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সে সময় খোতবা দিচ্ছিলেন ৷ ঢোল ও বাদ্য যন্ত্রের শব্দ শুনে সব মানুষ অস্থির হয়ে উঠল এবং ১২ জন লোক ছাড়া সবাই 'বাকী' নামক স্থানে ছুঁটে গেল ৷ বাণিজ্য কাফেলা এখানেই অবস্থান করেছিল ৷ এই ঘটনা সম্পর্কে বিভিন্ন বর্ণনা আছে ৷ এর মধ্যে হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহর বর্ণনাটি সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ৷ এ বর্ণনাটিকে ইমাম আহমাদ, বুখারী, মুসলিম, তিরমিযী, আবু উওয়ানা, আবদ ইবনে হুমাইদ, আবু ইয়ালা, প্রমুখ মুহাদ্দিসগণ বিভিন্ন সময়ে বর্ণনা করেছেন ৷ এসব বর্ণনার মধ্যে অসামঞ্জস্য শুধু এতটুকু যে, কোন বর্ণনায় বলা হয়েছে ঘটনাটি নামাযরত অবস্থায় ঘটেছিল ৷ আবার কোন বর্ণনাতে বলা হয়েছে যে, নবী(সা) যখন খোতবা দিচ্ছিলেন ঘটনাটি তখন ঘটেছিল ৷ কিন্তু হযরত জাবের এবং অন্য সব সাহাবী ও তাবেয়ীদের সবগুলো বর্ণনা একসাথে বিচার করলে যে কথাটি সঠিক বলে মনে হয় তাহলো ঘটনাটি খোতবার সময় সংঘটিত হয়েছিল ৷ যেখানে তিনি বলেছেন যে, ঘটনাটি জুম'আর নামাযের সময় ঘটেছিল সেখানে তিনি জুম'আর নামায বলতে খোতবা ও নামায উভয়ের সমষ্টিকে বুঝিয়েছেন ৷ হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাসের বর্ণনায় বলা হয়েছে , সে সময় ১২ জন পুরুষের সাথে সাত জন মহিলাও রয়ে গিয়েছেন ৷ (ইবনে মারদুইয়া) কাতাদা বর্ণনা করেছেন যে, ১২ জন পুরুষের সাথে ১ জন মহিলা ও ছিলেন ৷ (ইবনে জারীর, ইবনে আবী হাতেম) ৷ দরুকুতনীর একটি রেওয়ায়াতে ৪০ ব্যক্তি এবং আবদ ইবনে হুমায়াদের রেওয়ায়াতে ৭ জন্যের কথা বলা হয়েছে ৷ ফাররা , আটজনের কথা উল্লেখ করেছেন ৷ কিন্তু এগুলো সবই দুর্বল রেওয়ায়াত ৷ কাতাদার এ রেওয়ায়াতও দুর্বল যে, এ ধরনের ঘটনা তিনবার ঘটেছিল ৷ (ইবনে জারীর) ৷ হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহর রেওয়ায়াতটিই নির্ভরযোগ্য ৷ এতে মসজিদে থেকে যাওয়া লোকের সংখ্যা ১২ জন বলা হয়েছে ৷ আর কাতাদার একটি রেওয়ায়াত ছাড়া অবশিষ্ট সমস্ত সাহাবী ও তাবেয়ীদের বর্ণনাসমূহ এ বিষয়ে একমত যে, এ ঘটনা মাত্র একবারই ঘটেছে ৷ মসজিদে থেকে যাওয়া লোকদের সম্পর্কে বিভিন্ন রেওয়ায়াত একত্রে বিচার করলে জানা যায়, তাদের মধ্যে ছিলেন হযরত আবু বকর (রা) , হযরত উমর(রা) , হযরত উসমান(রা) , হযরত আলী(রা) , হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ(রা) , হযরত আম্মার(রা) ৷ ইবনে ইয়াসির, হুযাফার আযাদ কৃতদাস হযরত সালেম (রা) , এবং হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ ৷ হাফেস আবু ইয়ালা, হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহর যে রেওয়ায়াত উদ্ধৃত করেছেন তাতে বলা হয়েছে ৷ লোকজন যখন এভাবে বের হয়ে চলে গেল এবং মাত্র ১২ জন অবশিষ্ট থাকলেন তখন নবী (সা) তাদের সম্বোধন করে বললেনঃ

------------------

"তোমরা সবাই যদি চলে যেতে এবং একজনও অবশিষ্ট না থাকত তাহলে এ উপত্যকা আগুনের প্রবাহে প্লাবিত হয়ে যেত ৷ "

ইবনে মারদুইয়া হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস থেকে এবং ইবনে জারীর কাতাদা থেকে প্রায় এর অনুরূপ বিষয় বর্ণনা করেছেন ৷

শিয়াগণ এ ঘটনাটিকেও সাহাবীদের (রা) প্রতি কটাক্ষ করার জন্য ব্যবহার করেছেন ৷ তাঁরা বলেনঃ এত বিপুল সংখ্যক সাহাবীর খোতবা এবং নামায ছেড়ে ব্যবসায়-বাণিজ্য ও খেল তামাশার দিকে ছুটে যাওয়া প্রমাণ করে , তারা দুনিয়াকে আখেরাতের চেয়ে অগ্রাধিকার দিতেন ৷ কিন্তু এটি এমন একটি কঠোর অমূলক দোষারোপ যা শুরু বাস্তব থেকে চোখ বন্ধ করেই করা যেতে পারে ৷ প্রকৃতপক্ষে এ ঘটনাটি ঘটেছিল হিজরাতের অব্যবহিত পরে ৷ সে সময় একদিকে সাহাবীদের সামষ্টিক প্রশিক্ষণ ছিল প্রাথমিক পর্যায়ে অন্যদিকে মক্কার কাফেররা তাদের প্রভাব প্রতিপত্তি দ্বারা মদীনার অধিবাসীদের কঠোরভাবে অবরোধ করে রেখেছিল যার কারণে মদীনায় নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দুষ্প্রাপ্য হয়ে গিয়েছিল ৷ হযরত হাসান বসরী বলেন, সেই সময় মদীনায় মানুষ না খেয়ে মারা যাচ্ছিল, কিন্তু জিনিসপত্রের দাম ছিল আকাশ ছোয়া (ইবনে জারীর) ৷ ঠিক এই পরিস্থিতিতে মদীনায় একটি বাণিজ্য কাফেলা এসে হাজির হলে নামাযরত লোকজন এই ভেবে আশংকাবোধ করলো, আমরা নামায শেষ করতে করতে সব জিনিসপত্র বিক্রি না হয়ে যায় ৷ এই ভয়ে তারা সেদিকে ছুটে গিয়েছিল ৷ এটা ছিল এমন একটি ত্রুটি ও দুর্বলতা যা শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের অভাব ও কঠোর পরিস্থিতির কারণে হঠাৎ করে সেই সময় দেখা দিয়েছিল ৷ কিন্তু তার পরবর্তী সময়ে এসব সাহাবী ইসলামের জন্য যেসব কুরবানী ও ত্যাগ-তিতিক্ষা দেখিয়েছেন , তা যদি কেউ দেখে এবং ইবাদাত-বন্দেগী ও সামষ্টিক কাজ-কর্মে তাদের জীবন যে অতুলনীয় আল্লাহভীতির সাক্ষ দেয় তাও দেখে তাহলে সে একথা বলে তাদের ওপর দোষারোপ করার দুঃসাহস দেখাতে পারবে না যে, তাদের মধ্যে আখেরাতের চেয়ে দুনিয়াকে অগ্রাধিকার দেয়া ব্যাধি ছিল ৷ তবে তার নিজের হৃদয় মনে যদি সাহাবীদের প্রতি হিংসা -বিদ্বেষের ব্যাধি থেকে থাকে তাহলে ভিন্ন কথা ৷

এ ঘটনা সাহাবীদের (রা) প্রতি কটাক্ষকারীদের যেমন সমর্থন করে না তেমনি সেসব লোকের ধ্যান-ধারণার প্রতিও সমর্থন জানায় না যারা সাহাবীদের প্রতি ভক্তি-শ্রদ্ধার আতিশয্যে দাবী করেন যে, তাদের দ্বারা কখনো কোন ভুল হয়নি, কিংবা হয়ে থাকলেও কখনো তা উল্লেখ করা উচিত নয় ৷ কারণ তাঁদের ভুল -ত্রুটির উল্লেখ করা এবং তাকে ভুল-ক্রুটি বলা তাদের অপমান করার শামিল ৷ এতে হৃদয় মনে তাদের প্রতি মর্যাদা ও শ্রদ্ধাবোধ অবশিষ্ট থাকে না ৷ তাছাড়া তাদের ভুল-ত্রুটির উল্লেখ সেসব আয়াত ও হাদীসেরও পরিপন্থী যার মধ্যে স্পষ্ট ভাষায় সাহাবীদের ক্ষমাপ্রাপ্ত হওয়া আল্লাহর নিকট প্রিয় হওয়ার কথা বলা হয়েছে ৷ এসব কথা স্পষ্ট বাড়াবাড়ি ৷ এর সমর্থনে কুরআন ও হাদীসে কোন দলীল নেই ৷ এখানে যে কেউ দেখতে পারেন, বিপুল সংখ্যক সাহাবীর (রা) একটি দল কর্তৃক যে ত্রুটি হয়েছিল আল্লাহ তা'আলা নিজে এখানে তাদের সেই ত্রুটির উল্লেখ করেছেন ৷ এমন গ্রন্থে তা উল্লেখ করেছেন যা কিয়ামত পর্যন্ত সমস্ত উম্মাতকে পড়তে হবে ৷ সেই গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন যে গ্রন্থে তাদের ক্ষমাপ্রাপ্ত হওয়া এবং আল্লাহর কাছে প্রিয় হওয়ার কথাও স্পষ্ট ভাষায় উল্লেখ করা হয়েছে ৷ তাছাড়া হাদীস ও তাফসীরের সমস্ত গ্রন্থে সাহাবা কিরাম (রা) থেকে পরবর্তীকালের আহলে সুন্নাত ওয়া জামায়াতের বড় বড় মনীষীগণ পর্যন্ত তাদের এই ত্রুটি বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করেছেন ৷ এর অর্থ কি এই যে, আল্লাহ তায়ালা মানুষের মন থেকে ঐ সব সাহাবীর প্রতি ভক্তি শ্রদ্ধা নষ্ট করার উদ্দেশ্যে ঐ ত্রুটির উল্লেখ করেছেন যা তিনি নিজেই মানুষের মনে কায়েম করতে চান? অথবা এর অর্থ কি এই যে, এসব অন্ধ ও গোঁড়া ভক্তগণ শরীয়াতের যে মাসয়ালাটি বলে থাকেন সাহাবায়ে কিরাম (রা) , তাবেয়ীগণ , মুহাদ্দিসগণ এবং মুফাসসিরগণের সে মাসায়ালাটি জানা থাকার কারণে এ ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ তারা উল্লেখ করেছেন? আর যারা সূরা জুম'আ পড়েন এবং তার তাফসীর অধ্যয়ন করেন তাদের মন থেকে কি সত্যি সত্যিই সাহাবা কিরামের (রা) প্রতি ভক্তি শ্রদ্ধা উধাও হয়ে গেছে? এ সব প্রশ্নের জবাব যদি নেতিবাচক হয়, আর নেতিবাচক তো অবশ্যই হবে তাহলে সাবাহায়ে কিরামের (রা) মর্যাদার নামে কিছু লোক যেসব অনর্থক এবং বাড়াবাড়ি অতিরঞ্জিত ও অতিশয়োক্তিমূলক কথাবার্তা বলে থাকেন তা অবশ্যই ভ্রান্ত ৷

প্রকৃতপক্ষে সাহাবায়ে কিরাম কোন আসমানী মাখলুক ছিলেন না ৷ বরং এই পৃথিবীতে জন্মলাভকারী মানুষ ছিলেন ৷ তারা যা কিছু হয়েছিলেন তা হয়েছিলেন রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের শিক্ষার গুণে ৷ তাদের এ শিক্ষা দেয়া হয়েছিল ক্রমান্বয়ে বছরের পর বছর ধরে ৷ কুরআন ও হাদীসে আমরা এ শিক্ষার যে নিয়ম-পদ্ধতি দেখতে পাই, তা হচ্ছে যখনই তাদের মধ্যে কোন দুর্বলতা দেখা দিয়েছে আল্লাহ ও আল্লাহর রসূল যথাসময়ে সেদিকে মনোনিবেশ করেছেন এবং দুর্বলতার সেই বিশেষ ক্ষেত্রে অনতিবিলম্বে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণদানের একটি কর্মসূচী শুরু করা হয়েছে ৷ জুম'আর নামাযের এই ক্ষেত্রেও আমরা দেখতে পাই যে, বাণিজ্য কাফেলা সংক্রন্ত ঘটনাটি ঘটলে আল্লাহ তা'আলা সূরা জুম'আর এ রুকূ'র আয়াতসমূহ নাযিল করে এ বিষয়ে সতর্ক করলেন এবং জুম'আর নামাযের নিয়ম-কানুন ও আদব-কায়দা অবহিত করলেন ৷ তাছাড়া রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লামে জুম'আর অনেকগুলো খোতবায় লোকজনের মনে জুম'আ ফরয হওয়ার গুরুত্ব বদ্ধমূল করে দিলেন এবং বিস্তারিতভাবে তাদেরকে জুম'আর নিয়ম-কানুন ও আদব-কায়দা শিক্ষা দিলেন ৷ আমরা বিভিন্ন হাদীস থেকে এসব হিদায়াত ও নির্দেশনা স্পষ্টভাবে পেয়ে থাকি ৷ আমরা এ বিষয়ে ১৫ নং টীকায় উল্লেখ করেছি ৷ হযরত আবু সাঈদ খুদরী বর্ণনা করেছেন যে, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ জুম'আর দিন প্রত্যেক মুসলমানের কর্তব্য গোসল করা, দাঁত পরিস্কার করা, যে উত্তম পোশাক তার আছে তা পরিধান করা, এবং যদি সম্ভব হয় সুগন্ধি ব্যবহার করা ৷ (মুসনাদে আহমাদ, বুখারী, মুসলিম, আবু দাউদ, নাসায়ী) হযরত সালমান ফারসী বলেন, নবী (সা) বলেছেনঃ যে মুসলমান জুম'আর দিনে গোসল করবে এবং সাধ্যমত নিজেকে বেশী করে পাক পবিত্র ও পরিস্কার -পরিচ্ছন্ন করবে, মাথায় তেল দেবে , ঘরে যে খোশবুই থাক না কেন ব্যবহার করবে, তারপর মসজিদে যাবে এবং দুই জন মানুষকে সরিয়ে দিয়ে তাদের মাঝে বসবে না, তারপর আল্লাহর দেয়া সমর্থ অনুসারে নামায (নফল) পড়বে এবং ইমাম যখন খোতবা দিবেন তখন চুপ থাকবে, এক জুম'আর থেকে পরবর্তী জুম'আ পর্যন্ত তার কৃত অপরাধসমূহ মাফ হয়ে যায় ৷ (বুখারী, মুসনাদে আহমাদ) ৷ হযরত আবু আইয়ূব আনসারী (রা) , হযরত আবু হুরাইরা (রা) এবং হযরত নুবাইশাতুল হুযালী (রা) ও তাদের বর্ণনায় নবী (সা) থেকে প্রায় অনুরূপ বিষয়বস্তু বর্ণনা করেছেন (মুসনাদে আহমাদ, বুখারী, মুসলিম, আবু দাউদ, তিরমিযী, তাবারানী) ৷ হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস বর্ণনা করেছেন যে, নবী (সা) বলেছেনঃ ইমাম যখন খোতবা দেন, তখন যে ব্যক্তি কথা বলে সে গাধার মত যার পিঠে বই পুস্তকের বোঝা চাপানো আছে ৷ আর যে ব্যক্তি তাকে বলেঃ চুপ কর তারও কোন জুম'আ হয়নি (মুসনাদে আহমাদ) হযরত আবু হুরাইরা থেকে বর্ণিত ৷ নবী (সা) বলেছেনঃ জুম'আর দিন খোতবার সময় যে ব্যক্তি কথা বলে তাকে যদি তোমরা বলো, "চুপ করো" তাহলে তোমরাও অর্থহীন কাজ করলে (বুখারী মুসলিম, নাসায়ী, তিরমিযী, আবু দাউদ) ৷ ইমাম আহমাদ, আবু দাউদ, ও তাবারানী হযরত আলী (রা) ও হযরত আবদু দারদা (রা) থেকে প্রায় অনুরূপ কিছু সংখ্যক হাদীস বর্ণনা করেছেন ৷ সেই সাথে নবী(সা) খতীবদেরকেও দীর্ঘ খোতবা দিয়ে মানুষকে বিরক্ত ও অতিষ্ট না করতে উপদেশ দিয়েছেন ৷ তিনি নিজে জুম'আর দিন সংক্ষিপ্ত খোতবা দিতেন এবং নামাযও খুব দীর্ঘ করে পড়াতেন না ৷ হযরত জাবের (রা) ইবনে সামুরা বর্ণনা করেছেন যে, নবী (সা) খোতবা দীর্ঘায়িত করতেন না ৷ তাঁর খোতবা হতো কয়েকটি সংক্ষিপ্ত কথার সমষ্টি (আবু দাউদ) ৷ হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আবু আওফ বলেনঃ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের খোতবা নামাযের তুলনায় সংক্ষিপ্ত হতো ৷ এবং নামায খোতবার চেয়ে দীর্ঘ হতো (নাসায়ী) ৷ হযরত আম্মার ইবনে ইয়াসির বর্ণনা করেনঃ নবী (সা) বলেছেনঃ কোন ব্যক্তি নামায দীর্ঘ হওয়া এবং খোতবা সংক্ষিপ্ত হওয়া প্রমাণ করে সে দীনের ব্যাপারে জ্ঞানের অধিকারী (মুসনাদে আহমাদ, মুসলিম) ৷ বাযযার আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা) থেকে প্রায় অনুরূপ বিষয়বস্তু সম্বলিত হাদীস বর্ণনা করেছেন ৷ নবী (সা) লোকজনকে কিভাবে জুম'আর নামাযের নিয়ম-কানুন ও আদব-কায়দা শিখাতেন এসব হাদীসের ভাস্য থেকে তা অনুমান করা যায় ৷ এভাবে এ নামাযের এমন একটি মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যার নজীর যার পৃথিবীর কোন জাতীর সামষ্টিক ইবাদতে দেখা যায় না ৷
২০. সাহাবীদের যে ত্রুটি হয়েছিল তা কি ধরনের ত্রুটি ছিল এ আয়াতাংশ থেকে তা বুঝা যায় (নাউযুবিল্লাহ) ৷ যদি ঈমানের দুর্বলতা ও জেনে শুনে আখেরাতের ওপর দুনিয়াকে অগ্রাধিকার দেয়া এর কারণ হতো তাহলে আল্লাহ তা'আলার ক্রোধ, শাসানি এবং তিরষ্কারের ধরন হতো ভিন্ন ৷ কিন্তু এ ধরনের কোন অপরাধ যেহেতু সেখানে হয়নি বরং, যা হয়েছিল তা প্রশিক্ষনের অভাবে হয়েছিল ৷ তাই প্রথমে শিক্ষকসূলভ ভঙ্গিতে জুম'আর নিয়ম-কানুন ও আদব -কায়দা শেখানো হয়েছে ৷ তারপর তাদের ত্রুটির কথা উল্লেখ করে মরুব্বিয়ানাভঙ্গিতে বুঝানো হয়েছে যে, জুম'আর খোতবা শোনা এবং নামায পড়ার জন্য আল্লাহর নিকট থেকে তোমরা যা লাভ করবে তা এই দুনিয়ার ব্যবসায়-বাণিজ্য ও খেল তামাশার চেয়ে উত্তম ৷
২১. অর্থাৎ এ পৃথিবীতে রিযিকদানের পরোক্ষ মাধ্যম যে বা যাই হোক না কেন তাদের সবার চেয়ে উত্তম রিযিকদাতা হলেন আল্লাহ তা'আলা ৷ কুরআন মজীদের বহু সংখ্যকস্থানে এ ধরনের কথা বলা হয়েছে ৷ কোথাও আল্লাহ তা'আলাকে "সর্বোত্তম সৃষ্টিকর্তা" কোথাও "সর্বোত্তম ক্ষমাকারী" কোথাও "সর্বোত্তম বিচারক", কোথাও "সর্বোত্তম দয়ালু" এবং কোথাও "সর্বোত্তম সাহায্যকারী" বলা হয়েছে ৷ এসব ক্ষেত্রে সৃষ্টি বা মাখলুকের সাথে রিযিক দেয়া, সৃষ্টি করা, দয়া করা এবং সাহায্য করার যে সম্পর্ক তা রূপক বা পরোক্ষ অর্থ প্রয়োগ করা হয়েছে এবং আল্লাহ তা'আলার ক্ষেত্রে প্রকৃত অর্থে প্রয়োগ করা হয়েছে ৷ অর্থাৎ দুনিয়াতে যারাই তোমাদেরকে বেতন, পারিশ্রমিক বা খাদ্য দিচ্ছে বলে দেখা যায়, যাদেরকেই তাদের শিল্প ও কারিগরী দক্ষতা দিয়ে কিছু তৈরী করতে দেখা যায় অথবা যাদেরকেই অন্যদের অপরাধ ক্ষমা করতে , দয়া করতে এবং সাহায্য করতে দেখা যায় আল্লাহ তাদের সবার চেয়ে বড় রিযিকদাতা, বড় সৃষ্টিকর্তা, বড় দয়ালু, বড় ক্ষমাকারী এবং বড় সাহায্যকারী ৷