(৩:৭২) আহলি কিতাবদের একটি দল বলে, এই নবীকে যারা মেনে নিয়েছে তাদের ওপর যা কিছু নাযিল হয়েছে, তার প্রতি তোমরা সকাল বেলায় ঈমান আনো এবং সাঁঝের বেলায় তা অস্বীকার করো৷ সম্ভবত এই উপায়ে এই লোকেরা নিজেদের ঈমান থেকে ফিরে যাবে৷৬১
(৩:৭৩) তাছাড়া এই লোকেরা পরস্পর বলাবলি করে, নিজের ধর্মের লোক ছাড়া আর কারো কথা মেনে নিয়ো না৷ হে নবী ! এদের বলে দাও,‘‘আল্লাহর হিদায়াতই তো আসল হিদায়াত এবং এটা তো তাঁরই নীতি যে, এক সময় যা তোমাদের দেয়া হয়েছিল তাই অন্য একজনকে দেয়া হবে অথবা অন্যেরা তোমাদের রবের কাছে তোমাদের বিরুদ্ধে পেশ করার জন্য শক্তিশালী প্রমাণ পেয়ে যাবে৷’’হে নবী ! তাদের বলে দাও, ‘‘গ্রহন ও মর্যাদা আল্লাহর ইখতিয়ারভুক্ত, যাকে ইচ্ছা তিনি তা দান করেন৷ তিনি ব্যাপক দৃষ্টির অধিকারী ৬২
(৩:৭৪) এবং সবকিছু জানেন ৷৬৩ নিজের রহমতের জন্য তিনি যাকে চান নির্ধারিত করে নেন এবং তাঁর অনুগ্রহ বিশাল ব্যপ্তির অধিকারী৷’’
(৩:৭৫) আহলি কিতাবদের মধ্যে কেউ এমন আছে, তার ওপর আস্থাস্থাপন করে যদি তাকে সম্পদের স্তূপ দান করো, তাহলেও সে তোমার সম্পদ তোমাকে ফিরিয়ে দেবে৷ আবার তাদের কারো আবস্থা এমন যে, যদি তুমি তার ওপর একটি মাত্র দীনারের ব্যাপারেও আস্থাস্থাপন করো, তাহলে সে তা তোমাকে ফিরিয়ে দেবে না, তবে যদি তোমরা তার ওপর চড়াও হয়ে যাও ৷ তাদের এই নৈতিক অবস্থার কারণ হচ্ছে এই যে, তারা বলেঃ নিরক্ষরদের (অ –ইহুদী) ব্যাপারে আমাদের কোন দায়দায়িত্ব নেই৷৬৪ আর এটা একটা সর্ম্পূণ মিথ্যা বানোয়াট কথা তারা আল্লাহর প্রতি আরোপ করেছে৷ অথচ তারা জানে, (আল্লাহ এমন কোন কথা বলেননি ৷)
(৩:৭৬) আচ্ছা, তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে না কেন ? যে ব্যক্তিই তার অংগীকার পূর্ণ করবে এবং অসৎকাজ থেকে দূরে থাকবে, সে আল্লাহর প্রিয়ভাজন হবে৷ কারণ আল্লাহ মুত্তাকীদের ভালোবাসেন৷
(৩:৭৭) আর যারা আল্লাহর সাথে করা অংগীকার ও নিজেদের শপথ সামান্য দামে বিকিয়ে দেয়, তাদের জন্য আখেরাতে কোন অংশ নেই৷ কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাদের সাথে কথা বলবেন না , তাদের দিকে তাকাবেন না এবং তাদেরকে পাক –পবিত্র ও করবেন না ৷৬৫ বরং তাদের জন্য রয়েছে কঠোর যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি৷
(৩:৭৮) তাদের মধ্যে কিছু লোক আছে, তারা কিতাব পড়ার সময় এমনভাবে জিভ ওলট পালট করে যে, তোমরা মনে করতে থাকো, তারা কিতাবেরই ইবারত পড়ছে, অথচ তা কিতাবের ইবারত নয়৷৬৬ তারা বলে, যা কিছু আমরা পড়ছি, তা আল্লাহর কাছ থেকেই পাওয়া অথচ তা আল্লাহর কাছ থেকে পাওয়া নয়, তারা জেনে বুঝে আল্লাহর ওপর মিথ্যা আরোপ করে৷
(৩:৭৯) কোন ব্যক্তিকে আল্লাহর কিতাব, হিকমত ও নবুওয়াত দান করবেন আর সে লোকদের বলে বেড়াবে, তোমরা আল্লাহর পরিবর্তে আমার দাস হয়ে যাও, এটা তার জন্য শোভনীয় নয়৷ সে তো একথাই বলবে, তোমরা খাঁটি রব্বানী ৬৭ হয়ে যাও, যেমন এই কিতাবের দাবী, যা তোমরা পড়ো এবং অন্যদের পড়াও৷
(৩:৮০) তারা তোমাদের কখনো বলবে না, ফেরেশতা বা নবীদেরকে তোমাদের রব হিসেবে গ্রহণ করো৷ তোমরা যখন মুসলিম তখন তোমাদেরকে কুফরীর হুকুম দেয়া একজন নবীর পক্ষে কি সম্ভব ? ৬৮
৬১. মদীনার উপকন্ঠে বসবাসকারী ইহুদীদের সামাজিক ও ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ ইসলামের দাওয়াতকে দুর্বল করার জন্য যেসব চাল চালতো এটি তার অন্যতম৷ ইসলামের প্রতি মুসলমানদেরকে বিরূপ করে তোলার এবং নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মনে সন্দেহ ও খারাপ ধারণা সৃষ্টি করার উদ্দেশ্যে তারা গোপনে লোক তৈরী করে পাঠাতো৷ তাদের উদ্দেশ্য ছিল, প্রথমে এই লোকগুলো প্রকাশ্যে ইসলাম গ্রহণ করবে, তারপর মুরতাদ হয়ে যাবে এবং ইসলাম, মুসলমান ও তাদের নবীর মধ্যে নানা প্রকার গলদ নির্দেশ করে বিভিন্ন স্থানে এই মর্মে প্রচার করে বেড়াবে যে, এই সমস্ত দোষ-ত্রুটি দেখেই তারা ইসলাম থেকে আলাদা হয়ে গেছে৷
৬২. মূলে "ওয়াসে" শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে৷ কুরআনে সাধারণত তিনটি জায়গায় এ শব্দটি ব্যবহার করা হয়৷ এক, যেখানে কোন একটি মানব গোষ্ঠীর সংকীর্ণমনতা ও সংকীর্ণ চিন্তার উল্লেখ করা হয় এবং আল্লাহ তাদের মতো সংকীর্ণ দৃষ্টির অধিকারী নন, একথা তাদের জানিয়ে দেবার প্রয়োজন হয়ে পড়ে৷ দুই, যেখানে কারো কৃপণতা, সংকীর্ণমনতা এবং স্বল্প সাহস ও হিম্মতের কারণে তাকে তিরস্কার করে মহান আল্লাহ যে উদার হস্ত এবং তার মতো কৃপণ নন, একথা বুঝাবার প্রয়োজন হয়৷ তিন, যেখানে লোকেরা নিজেদের চিন্তার সীমাবদ্ধতার কারণে আল্লাহর ওপরও এক ধরনের সীমাবদ্ধতা আরোপ করে থাকে৷ এ ক্ষেত্রে একথা জানাবার প্রয়োজন হয়ে পড়ে যে, আল্লাহ সকল প্রকার সীমাবদ্ধতার উর্ধে, তিনি অসীম৷ (এ প্রসংগে সূরা আল বাকারার ১১৬ টীকাটি ও দেখুন)৷
৬৩. অর্থাৎ কে অনুগ্রহ ও মর্যাদালাভের যোগ্য আল্লাহই তা জানেন৷
৬৪. এটা কেবল সাধারণ ইহুদীদের মূর্খতাপ্রসূত ধারণাই ছিল না৷ বরং এটাই ছিল তাদের ধর্মীয় শিক্ষা৷ তাদের বড় বড় ধর্মীয় নেতারা এই ধর্মীয় বিধানও দিতো৷ বাইবেলে ঋণ ও সূদের বিধানের ক্ষেত্রে ইসরাঈলী ও অ-ইসলাঈলীদের মধ্যে সুস্পষ্ট পার্থক্য করা হয়েছে৷ (দ্বিতীয় ববিরণ ১৫: ৩-২৩: ২০) তালমূদে বলা হয়েছে, যদি কোন ইসরাঈলীর বলদ কোন অ-ইসরাঈলীর বলদকে আহত করে তাহলে এ জন্য কোন জরিমানা দিতে হবে না৷ কোন ব্যক্তি যদি কোন জিনিস কুড়িয়ে পায় তাহলে তাকে চারপাশের জনবসতির দিকে নজর দিতে হবে৷ চারপাশে যদি ইসরাঈলীদের বসতি থাকে, তাহলে বিনা ঘোষণায় সে জিনিসটি নিয়ে নিতে পারে৷ রাব্বী ইসমাঈল বলেন: যদি ইসরাঈলী ও অইসরাঈলীর মামলা বিচারপতির আদালতে আসে, তাহলে বিচারপতি ধর্মীয় আইনের আওতায় নিজের ভাইকে জয়ী করতে পারলে তাই করবেন এবং বলবেন ,এটা তো আমাদের আইন৷ আর অ-ইসরাঈলীদের আইনের আওতায় জয়ী করতে পারলে তাই করবেন এবং বলবেন, এটা তো তোমাদের আইন ৷ যদি দু'টি আইনের কোনটার সাহায্যেই ইসরাইলীকে জয়ী করানো সম্ভব না হয়,তাহলে যে কোন বাহানাবাজী ও কৌশল অবলম্বন করে ইসরাঈলীকে জয়ী করা যায়,তা তাকে করতে হবে৷ রাব্বী শামওয়াঈল বলনে: অ-ইসরাঈলীর প্রতিটি ভুলের সুযোগ গ্রহণ করা উচতি৷ (Talmudic miscellany paul isaac hershon, London 1880. Page-37, 220, 221)
৬৫. এর কারণ হচ্ছে, এরা এত বড় বড় এবং কঠিনতম অপরাধ করার পরও মনে করতো, কিয়ামতের দিন তারাই আল্লাহর সবচেয়ে বেশী নৈকট্যলাভের অধিকারী হবে৷ তাদের প্রতি বর্ষিত হবে আল্লাহর অনুগ্রহ৷ আর দুনিয়ার জীবনে যে সামান্য গোনাহের দাগ তাদের গায়ে লেগে গেছে, বুযর্গদের বদৌলতে তাও ধুয়ে মুছে সাফ করে দেয়া হবে৷ অথচ আসলে সেখানে তাদের সাথে এর সম্পূর্ণ উল্‌টা ব্যবহার করা হবে৷
৬৬. এর অর্থ যদিও এটাও হতে পারে যে, তারা আল্লাহর কিতাবের অর্থ বিকৃত করে অথবা শব্দ ওলট পালট করে তার অর্থ সম্পূর্ণ উল্‌টে দেয় তবুও এর আসল অর্থ হচ্ছে তারা আল্লাহর কিতাব পড়ার সময় তাদের স্বার্থ বা মনগড়া আকীদা-বিশ্বাস ও মতবাদ বিরোধী কোন বিশেষ শব্দকে জিভের নাড়াচাড়ার মাধ্যমে এমনভাবে উচ্চারণ করে যার ফলে তারা চেহারা বদল হয়ে যায়৷ কুরআনের স্বীকৃতি দানকারী আহ্‌লী কিতাবদের মধ্যেও এর নজীরের অভাব নেই৷ যেমন নবীর মানব সম্প্রদায়ভূক্ত হবার বিষটি যারা অস্বীকার করে তারা কুরআনের (--------) (অবশ্যি আমি তোমাদের মতোই একজন মানুষ) আয়াতটি পড়ার সময় 'ইন্নামা' শব্দটিকে ভেঙে "ইনা" "মা" দুই শব্দ করে পড়ে৷ এর অর্থ হয়: ''হে নবী! তুমি বলে দাও, অবশ্যি আমি মানুষ নই তোমাদের মতো"৷
৬৭. ইহুদীদের সমাজে যারা আলেম পদবাচ্য হতেন, যারা ধর্মীয় পদ ও মর্যাদায় অধিষ্ঠিত থাকতেন, ধর্মীয় ব্যাপারে লোকদের নেতৃত্বদান এবং ইবাদাত প্রতিষ্ঠা ও ধর্মীয় বিধান প্রবর্তন করাই ছিল যাদের কাজ তাদের জন্য রব্বানী শব্দটি ব্যবহার করা হতো৷ যেমন কুরআনের একস্থান বলা হয়েছেঃ

--------------------------

(অর্থাৎ তাদের রব্বানী ও আলেমরা তাদেরকে গোনাহের কথা বলতে ও হারাম সম্পদ খেতে বাধা দিতো না কেন?) অনুরূপভাবে খৃস্টানদের মধ্যে ''রব্বানী" এর সমার্থক (Divine) প্রচলন দেখা যায়৷
৬৮. দুনিয়ার বিভিন্ন জাতি আল্লাহর পক্ষ থেকে প্রেরিত নবীদের ওপর যেসব মিথ্যা কথা আরোপ করে নিজেদের ধর্মীয় গ্রন্থগুলোর অন্তরভূক্ত করে নিয়েছে এবং যেগুলোর প্রেক্ষিতে নবী বা ফেরেশতারা কোন না কোন দিক দিয়ে ইলাহ ও মাবুদ হিসেবে গণ্য হয়, এখানে তাদের সেই সমস্ত মিথ্যা কথার বলিষ্ঠ ও পূর্ণাংগ প্রতিবাদ জানানো হয়েছে৷ এই আয়াতে একটি মূলনীতি বর্ণনা করা হয়েছে, বলা হয়েছেঃ যে শিক্ষা মানুষকে আল্লাহ ছাড়া অন্য কোন সত্তার বন্দেগী ও পূজা-অর্চনায় লিপ্ত করে এবং তাকে আল্লাহর দাসত্বের পর্যায় থেকে খোদায়ীর পর্যায়ে উন্নীত করে, তা কখনো নবীর শিক্ষা হতে পারে না৷ কোন ধর্মী গ্রন্থে ধরনের বক্তব্য দেখা গেলে সেখানে বিভ্রান্ত লোকেরা এই বিকৃতি ঘটিয়েছে বলে ধরে নিতে হবে৷