(২০:১) ত্বা-হা৷
(২০:২) আমি এ কুরআন তোমার প্রতি এজন্য নাযিল করেনি যে, তুমি বিপদে পড়বে৷
(২০:৩) এ তো একটি স্মারক এমন প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য যে ভয় করে৷
(২০:৪) যে সত্তা পৃথিবী ও সুউচ্চ আকাশমন্ডলী সৃষ্টি করেছেন তাঁর পক্ষ থেকে এটি নাযিল করা হয়েছে৷
(২০:৫) তিনি পরম দয়াবান৷ (বিশ্ব-জাহানের) শাসন কর্তৃত্বের আসনে সমাসীন৷
(২০:৬) যা কিছু পৃথিবীতে ও আকাশে আছে, যাকিছু পৃথিবী ও আকাশের মাঝখানে আছে এবং যাকিছু ভুগর্ভে আছে সবকিছুর মালিক তিনিই৷
(২০:৭) তুমি যদি নিজের কথা উচ্চকন্ঠে বলো, তবে তিনি তো চুপিসারে বলা কথা বরং তার চাইতেও গোপনে বলা কথাও জানেন৷
(২০:৮) তিনি আল্লাহ, তিনি ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই, তাঁর জন্য রয়েছে সর্বোত্তম নামসমূহ৷
(২০:৯) আর তোমার কাছে কি মূসার খবর কিছু পৌঁছেছে?
(২০:১০) যখন সে একটি আগুন দেখলো নিজের পরিবারের লোকদেরকে বললো, “একটু দাড়াও, আমি একটি আগুন দেখেছি, হয়তো তোমাদের জন্য এক আধটি অংগার আনতে পারবো অথবা এ আগুনের নিকট আমি পথের দিশা পাবো”৷
(২০:১১) সেখানে পৌঁছলে তাকে ডেকে বলা হলো, “হে মূসা! আমিই তোমার রব, জুতো, খুলে ফেলো,
(২০:১২) তুমি পবিত্র ‘তুওয়া’ উপত্যকায় আছো৷
(২০:১৩) এবং আমি তোমাকে বাছাই করে নিয়েছি, শোনো যা কিছু অহী করা হয়৷
(২০:১৪) আমিই আল্লাহ, আমি ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই, কাজেই তুমি আমার ইবাদত করো এবং আমাকে স্মরণ করার জন্য নামায কায়েম করো৷
(২০:১৫) কিয়ামত অবশ্যই আসবে, আমি তার সময়টা গোপন রাখতে চাই, যাতে প্রত্যেকটি প্রাণসত্তা তার প্রচেষ্টা অনুযায়ী প্রতিদান লাভ করতে পারে৷ ১০
(২০:১৬) কাজেই যে ব্যক্তি তার প্রতি ঈমান আনে না এবং নিজের প্রবৃত্তির দাস হয়ে গেছে সে যেন তোমাকে সে সময়ের চিন্তা থেকে নিবৃত্ত না করে৷ অন্যথায় তুমি ধ্বংস হয়ে যাবে৷
(২০:১৭) আর হে মূসা! এ তোমার হাতে এটা কি?”১১
(২০:১৮) মূসা জবাব দিল, ”এ আমার লাঠি৷ এর ওপর ভর দিয়ে আমি চলি, নিজের ছাগলগুলোর জন্য এর সাহায্যে পাতা পাড়ি এবং এর সাহায্যে আরো অনেক কাজ করি”৷ ১২
(২০:১৯) বললেন, একে ছুঁড়ে দাও হে মূসা”!
(২০:২০) সে ছূঁড়ে দিল এবং অকস্মাত সেটা হয়ে গেলো একটা সাপ, যা দৌড়াচ্ছিল৷
(২০:২১) বললেন, ”ধরে ফেলো ওটা এবং ভয় করো না, আমি ওকে আবার ঠিক তেমনটিই করে দেবা যেমনটি সে আগে ছিল৷
(২০:২২) আর তোমার হাতটি একটু বগলের মধ্যে রাখো, তা কোনপ্রকার ক্লেশ ছাড়াই উজ্জ্বল হয়ে বের হয়ে আসবে,১৩ এটা দ্বিতীয় নিদর্শন৷
(২০:২৩) এজন্য যে, আমি তোমাকে নিজের বৃহৎ নিদর্শনগুলো দেখাবো৷
(২০:২৪) এখন তুমি যাও ফেরাউনের কাছে, সে বিদ্রোহী হয়ে উঠেছে”৷
১. এ বাক্যটি নিজেই পূর্ববর্তী বাক্যের অর্থের ওপর আলোকপাত করছে৷ উভয় বাক্য মিলিয়ে পড়লে এ পরিস্কার অর্থটি বুঝা যায় যে, কুরআন নাযিল করে আমি তোমার দ্বারা এমন কোন কাজ করাতে চাই না যা তোমার পক্ষে করা অসম্ভব৷ তোমাকে এ দায়িত্ব দেয়া হয়নি যে, যারা মেনে তিতে চায় না তদেরকে মানাতেই হবে৷ এটা তো একটা স্মরণ করা ও স্মরণ করিয়ে দেয়া এবং এজন্য পাঠানো হয়েছে যে, যার মনে আল্লাহর ভয় আছে সে এটা শুনে সজাগ হবে৷ এখন যদি কিছু লোকের মনে আল্লাহর ভয় একদম না থেকে থাকে এবং তাদের হক ও বাতিলের কোন পরোয়াই না থাকে তাহলে তাদের পেছনে সময় নষ্ট করার কোন প্রয়োজনই তোমার নেই৷
২. অর্থাৎ সৃষ্টি করার পর তিনি কোথাও গিয়ে ঘুমিয়ে পড়েননি৷ বরং সৃষ্টিজগতে সমস্ত ব্যবস্থা নিজেই পরিচালনা করছেন৷ এই সীমাহীন রাজ্যে তিনি নিজেই রাজত্ব করছেন৷ তিনি কেবল স্রষ্টাই নন, কার্যত শাসকও৷
৩. অর্থাৎ তোমার ও তোমার সাথীদের ওপর যেসব জুলুম নিপীড়ন চলছে এবং যেসব দুষ্কৃতি ও শয়তানী কার্যকলাপের মাধ্যমে তোমাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করা হচ্ছে, সেগুলোর জন্য তোমার উচ্চ কন্ঠে ফরিয়াদ জানানোর তেমন কোন দরকার নেই৷ তুমি কোন ধরনের অবস্থার সম্মুখীন হয়েছো তা আল্লাহ খুব ভালো করেই জানেন৷ তিনি তোমাদের অন্তরের ডাকও শুনছেন৷
৪. অর্থাৎ তিনি সর্বোত্তম গুণাবলীর অধিকারী৷
৫. এটা সে সময়ের কথা যখন হযরত মূসা মাদয়ানে কয়েক বছর নির্বাসিত জীবন যাপন করার পর নিজের স্ত্রীকে (যার সাথে মাদয়ানে বিয়ে হয়েছিল) নিয়ে মিসরে ফিরে যাচ্ছিলেন৷ এর আগর ঘটনা সূরা কাসাসে বর্ণিত হয়েছে৷ এর সংক্ষিপ্তসার হচ্ছেঃ হযরত মূসার হাতে একজন মিসরীয় মারা পড়ার ফলে তিনি নিজের গ্রেফতার হয়ে যাওয়ার আশংকা করছিলেন৷ এ সময় তিনি মিসর ত্যাগ করে মাদয়ানে গিয় আশ্রয় নিয়ছিলেন৷
৬. মনে হচ্ছে তখন সময়টা ছিল শীতকালের একটি রাত৷ হযরত মূসা সিনাই উপদ্বীপের দক্ষিণ এলাকা অতিক্রম করছিলেন৷ দূর থেকে একটি আগুন দেখে তিনি মনে করেছিলেন সেখান থেকে কিছু আগুন পাওয়া যাবে যার সাহায়্যে শিশু সন্তান ও পরিবারের লোকজনদের সারারাত গরম রাখার ব্যবস্থা হবে অথবা কমপক্ষে সামনের দিকে অগ্রসর হবার পথের সন্ধান পাওয়া যাবে৷ তিনি দুনিয়ার পথের সন্ধান পাওযার কথা চিন্তা করেছিলেন আর পেয়ে গেলেন সেখানে আখেরাতের পথ৷
৭. সম্ভবত এ ঘটনার কারণে ইহুদীরা তাদের শরীযাতের এ বিধান তৈরী করে নিয়েছে যে, জুতা পায়ে দিয়ে নামায পড়া জায়েয নয়৷ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসল্লাম এ বিভ্রান্তিটি দূর করার জন্য বলেনঃ

()

"ইহুদীদের বিপরীত কাজ করো৷ কারণ তারা জুতা ও চামড়ার মোজা পরে নামায পড়ে না৷ " (আবু দাউদ)

এর অর্থ এ নয় যে, জুতা পরেই নামায পড়তে হবে৷ বরং এর অর্থ হচ্ছে, এমনটি করা জায়েয৷ কাজেই উভয়বিধ কাজ করা৷ আবু দাউদে আমর ইবনে আসের (রা) রেওয়ায়াত উদ্ধৃত হয়েছে৷৷ তাতে বলা হয়েছে, তিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে উভয় অবস্থায় নামায পড়তে দেখেছেন৷ মুসনাদে আহমদ ও আবু দাউদে আবু সাঈদ খূদরীর (রা) রেওয়ায়াত বর্ণিত হয়েছে৷ তাতে নবী (সা) বলেছেনঃ "যখন তোমাদের কেউ মসজিদে আসে, সে যেন তার জুতা পরীক্ষা করে দেখে নেয়৷ যদি কোন নাপাকী লেগে থাকে তাহলে মাটিতে ঘসে পরিস্কার করো এবং সে জুতা পরে নামায পড়ে নাও৷ " আবু হুরাইরার (রা) রেওয়ায়াতে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের একথাগুলো আছেঃ "যদি তোমাদের কেউ জুতা দিয়ে নাপকী মাড়িয়ে থাকে হাহলে মাটি তাকে পাক করে দেবার জন্য যথেষ্ট৷ " আর হযরত উম্মে সালমাহ (রা) বর্ণিত রেওয়ায়াতে বলা হয়েছে (……….) অর্থাৎ "এক জায়াগায় নাপাকী লেগে থাকলে অন্য জায়গায় যেতে যেতে মাটি নিজে নিজেই তাকে পাক করে দেবে৷" এ বিপুল সংখ্যক হাদীসের কারণে ইমাম আবু হানীফা, ইমাম আবু ইউসুফ, ইমাম আওযায়ী ও ইসহাক ইবনে রাহাওয়াইয়াহ প্রমুখ ফকীহগণ এমত পোষণ করেন যে, জুতা সর্বাবস্থায় যমীনের মাটির সাহায্যে পাক হয়ে যায়৷ ইমাম আহমদ ও ইমাম শাফেঈর একটি উক্তিও এর সমর্থনে রয়েছে৷ কিন্তু ইমাম শাফেঈর সর্বজন পরিচিত উক্তি এর বিরোধী৷ সম্ভবত তিনি জুতা পরে নামায পড়া আদবের বিরোধী মনে করে তা করতে নিষেধ করেন৷ যদিও একথা মনে করা হয়েছে যে, তাঁর মতে জুতা মাটিতে ঘসলে পাক হয় না৷ (এ প্রসংগে উল্লেখ্য, মসজিদে নববীতে চাটাইয়ের বিছানাও ছিল না বরং কাঁকর বিছানো ছিল৷ কাজেই এসব হাদীসের প্রমাণের ভিত্তিতে যদি কোন ব্যক্তি আজ মসজিদের বিছানার ওপর জুতা পায়ে উঠতে চায় তাহলে তা সঠিক হবে না৷ তবে ঘাসের ওপর বা খোলা ময়দানে জুতা পায়ে নামায পড়তে পারে৷ তবে যারা মাঠে-ময়দানে জানাযার নামায পড়ার সময়ও পা থেকে জুতা খুলে ফেলার ওপর জোর দিতে থাকে তারা আসলে শরীয়াতের বিধান জানে না৷ )
৮. সাধারণত মনে করা হয়ে থাকে যে, "তুওয়া" ছিল এই উপত্যকাটির নাম৷ কিন্তু কোন কোন মুফাসসির "পবিত্র তুওয়া উপত্যকা" অর্থ করেছেন, "এমন উপত্যকা যাকে একটি সময়ের জন্য পবিত্র করা হয়েছে"
৯. এখানে নামাযের মূল উদ্দেশ্যের ওপর আলোকপাত করা হয়েছে৷ মানুষ যেন আল্লাহ থেকে গাফেল না হয়ে যায়৷ দুনিয়ার চোখ ধাঁধানো দৃশ্যাবলী যেন তাকে এ সত্য বিমুখ না করে দেয় যে, সে কারো বান্দা এবং সে স্বাধীন ক্ষমতা সম্পন্ন নয়৷ এ চিন্তাকে জীবন্ত ও তরতাজা রাখার এবং আল্লাহর সাথে মানুষের সম্পর্ক জড়িত করার সবচেয়ে বড় মাধ্যম হচ্ছে নামায৷ প্রতিদিন কয়েকবার মানুষকে দুনিয়ার কাজকারবার থেকে সরিয়ে নামায তাকে আল্লাহর দিকে নিয়ে যায়৷

কেউ কেউ এর এ অর্থও নিয়েছেন যে, নামায কায়েম করো যাতে আমি তোমাকে স্মরণ করতে পারি, যেমন অন্যত্র বলা হয়েছেঃ (……….) "আমাকে স্মরণ করো আমি তোমাকে স্মরণে রাখবো"৷

অনুসংগিকভাবে এ আয়াত থেকে এ বিধানটিও বের হয় যে, যে ব্যক্তি ভুলে যায় তার যখনই মনে পড়বে তখনই নামায পড়ে নেয়া উচিত৷ হাদীসে হযরত আনাস (রা) থেকে বর্ণনা করা হয়েছেঃ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ

--------------------------

"কোন ব্যক্তি কোন সময় নামায পড়তে ভুলে গিয়ে থাকলে যখন তার মনে পড়ে যায় তখনই নামায পড়ে নেয়া উচিত৷ এছাড়া এর আর কোন কাফ্ফারা নেই"৷ (বুখারী, মুসলিম, আহমদ )

এ অর্থে হযরত আবু হুরাইরার (রা) একটি হাদীসও বর্ণিত হয়েছে৷ মুসলিম, আবু দাউদ, নাসাঈ প্রমুখ মুহাদ্দিসগণ এটি তাঁদের হাদীসগ্রন্থে উদ্ধৃত করেছেন৷ আবু কাতাদাহ (রা) বর্ণিত একটি হদীসে বলা হয়েছেঃ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জিজ্ঞেস করা হয়, যদি আমরা নামাযের সময় ঘুমিয়ে থাকি তাহলে কি করবো" জবাবে তিনি বলেন, "ঘুমের মধ্যে কোন দোষ নেই৷ দোষের সম্পর্ক তো জেগে থাকা অবস্থার সাথে৷ কাজেই যখন তোমাদের মধ্যে কেউ ভুলে যাবে অথবা ঘুমিয়ে পড়বে তখন জেগে উঠলে বা মনে পড়লে তৎক্ষণাত নামায পড়ে নেবে"৷ (তিরমিযী, নাসাঈ, আবু দাউদ)
১০. তাওহীদের পরে যে দ্বিতীয় সত্যটি প্রত্যেক যুগে সকল নবীর সামনে সুস্পষ্ট করে তুলে ধরা হয়েছে এবং যার শিক্ষা দেবার জন্য তাদেরকে নিযুক্ত করা হয়েছে সেটি হচ্ছে আখেরাত৷ এখানে কেবলমাত্র এ সত্যটি বর্ণনা করাই হয়নি বরং এর উদ্দেশ্যের ওপরও আলোকপাত করা হয়েছে৷ এ প্রতীক্ষিত সময়টি আসার কারণ হচ্ছে এই যে, প্রত্যেক ব্যক্তি দুনিয়ায় যে প্রচেষ্টা চালিয়েছে এবং যে কাজ করেছে তার প্রতিদান পাবে সে আখেরাতে৷ তবে পরীক্ষার উদ্দেশ্য পূর্ণ করার লক্ষে সে সময়টি গোপন রাখা হয়েছে৷ যার আখেরাতের সামান্য চিন্তা থাকবে সে সব সময় এ সময়টির কথা ভাববে এবং এ ভাবনা তাকে ভুল পথে চলা থেকে রক্ষা করবে৷ আর যে ব্যক্তি বৈষয়িক কাজ কর্মের মধ্যে হারিয়ে যেতে চাইবে সে এ চিন্তার মধ্যে ডুবে যাবে যে, কিয়ামত এখনো অনেক দূরে, বহুদূরে ও তার আসার কোন চিন্হই দেখা যায় না৷
১১. জ্ঞান লাভ করার বা জানার জন্য এ প্রশ্ন ছিল না৷ বরং আল্লাহ জানতেন হযরত মূসার হাতে যে লাঠি আছে অন্য কিছু নয় এ ব্যাপারে যেন তিনি নিশ্চিত হয়ে যান এবং এরপর দেখেন আল্লাহর কুদরতের খেলা কিভাবে শুরু হয়৷
১২. যদিও জবাবে শুধুমাত্র এতটুকু বলে দেয়াই যথেষ্ট ছিল যে, জনাব, এটা একটা লাঠি৷ কিন্তু হযরত মূসা এ প্রশ্নের যে লম্বা জাবাব দিলেন তা তাঁর সে সময়কার মানসিক অবস্থার একটা চমৎকার ছবি তুলে ধরেছে৷ সাধারণত দেখা যায়, মানুষ যখন কোন বড় ব্যক্তির সাথে কথা বলার সুযোগ পায় তখন নিজের কথা দীর্ঘায়িত করার চেষ্টা করে, যাতে তার সাথে বেশীক্ষণ কথা বলার সৌভাগ্য লাভ করা যায়৷
১৩. অর্থাৎ সূর্যের আলোর মতো আলো হবে কিন্তু এর ফলে তোমার কোন কষ্ট হবে না৷ বাইবেলে সাদা হাতের ভিন্ন একটি ব্যাখ্যা করা হয়েছে এবং সেখান থেকে আমাদের তাফসীরগুলোতেও এর প্রচলন হয়ে গেছে৷ সেটা হচ্ছে এই যে, হযরহ মূসা যখন বগলে হাত রেখে বাইরে বের করলেন তখন দেখা গেলো পুরো হাতটাই কুষ্টরোগীর হাতের মতো সাদা হয়ে গেছে৷ তারপর আবার যখন তা বগলে রাখলেন তখন আবার আগের মতো হয়ে গেছে৷ এ মুজিযাটির এ ব্যাখ্যাই তালমুদেও বর্ণিত হয়েছে এবং এর গূঢ় তত্ত্ব বর্ণনা প্রসংগে বলা হয়েছে যে, ফেরাউনের কুষ্ঠরোগ ছিল এবং এ রোগ সে লুকিয়ে রেখেছিল৷ আহ তার সামনে এ মুজিযা পেশ করে তাকে দেখানো হয়েছে যে, দেখো মুহুর্তের মধ্যে কুষ্ঠ রোগ সৃষ্টি করে মুহুর্তের মধ্যেই তা নিরাময় করা যায়৷ কিন্তু প্রথমত ভারসাম্যপূর্ণ রুচিশীলতা কোন নবীকে কুষ্ঠরোগের মুজিযা দিয়ে এক বাদশাহর দরবারে পাঠানোর ব্যাপারটিই গ্রহণ করতে অস্বীকার করে৷ দ্বিতীয়ত ফেরাউনের যদি অপ্রকাশ্য কুষ্ঠরোগ থেকে থাকে তাহলে কুষ্ঠরোগীর সাদা হাত শুধুমাত্র তার একার জন্য মুজিযা হতে পারে, তার সভাসদদের ওপর এ মুজিযার কী প্রভাব পড়বে" কাজেই সঠিক কথা এটাই, যা আমরা উপরে বর্ণনা করেছি৷ অর্থাৎ তাঁর হাত সূর্যালোকের মতে আলোকোজ্জ্বল হয়ে উঠতো এবং চোখ সেদিকে তাকিয়ে থাকতে পারতো না৷ প্রথম যুগের মুফাসসিরদের অনেকেই এ অর্থ গ্রহণ করেছেন৷