(২:১৪৮) প্রত্যেকের জন্য একটি দিক আছে, সে দিকেই সে ফেরে ৷ কাজেই তোমরা ভালোর দিকে এগিয়ে যাও ৷১৪৯ যেখানেই তোমরা থাকো না কেন আল্লাহ তোমাদেরকে পেয়ে যাবেন ৷ তাঁর ক্ষমতার বাইরে কিছুই নেই ৷
(২:১৪৯) তুমি যেখান থেকেই যাওনা কেন, সেখানেই তোমার মুখ(নামাযের সময়)মসজিদে হারামের দিকে ফেরাও ৷ কারণ এটা তোমার রবের সম্পূর্ণ সত্য ভিত্তিক ফায়সালা ৷ আল্লাহ তোমাদের কর্মকান্ডের ব্যাপারে বেখবর নন৷
(২:১৫০) আর যেখান থেকেই তুমি চল না কেন তোমার মুখ মসজিদে হারামের দিকে ফেরাও এবং যেখানেই তোমরা থাকো না কেন সে দিকেই মুখ করে নামায পড়ো, যাতে লোকেরা তোমাদের বিরুদ্ধে কোন প্রমাণ খাড়া করতে না পারে -১৫০ তবে যারা যালেম, তাদের মুখ কোন অবস্থায়ই বন্ধ হবে না ৷ কাজেই তাদেরকে ভয় করো না বরং আমাকে ভয় করো – আর এ জন্য যে, আমি তোমাদের ওপর নিজের অনুগ্রহ পূর্ণ করে দেবো ১৫১ এবং এই আশায় ১৫২ যে, আমার এই নির্দেশের আনুগত্যের ফলে তোমরা ঠিক তেমনিভাবে সাফল্যের পথ লাভ করবে
(২:১৫১) যেমনিভাবে (তোমরা এই জিনিসটি থেকেও সাফল্য লাভের সৌভাগ্য অর্জন করেছো যে,)আমি তোমাদের মধ্যে স্বয়ং তোমাদের থেকেই একজন রসূল পাঠিয়েছি, যে তোমাদেরকে আমার আয়াত পড়ে শুনায় , তোমাদের জীবন পরিশুদ্ধ করে সুসজ্জিত করে , তোমাদেরকে কিতাব ও হিকমত শিক্ষা দেয় এবং এমন সব কথা তোমাদের শেখায় , যা তোমরা জানতে না ৷
১৪৯. প্রথম বাক্য ও দ্বিতীয় বাক্যটির মাঝখানে একটু সূক্ষ্ম ফাঁক রয়েছে ৷ শ্রোতা নিজে সামান্য একটু চিন্তা –ভাবনা করলে এই ফাঁক ভরে ফেলতে পারেন ৷ ব্যাপার হচ্ছে এই যে, যাকে নামায পড়তে হবে তাকে অবশ্যি কোন না কোন দিকে মুখ ফেরাতে হবে ৷ কিন্তু যেদিকে মুখ ফেরানো হয় সেটা আসল জিনিস নয় , আসল জিনিস হচ্ছে সেই নেকী ও কল্যাণগুলো যেগুলো অর্জন করার জন্য নামায পড়া হয় ৷ কাজেই দিক ও স্থানের বিতর্কে জড়িয়ে না পড়ে নেকী ও কল্যান অর্জনে ঝাপিয়ে পড়তে হবে ৷
১৫০. অর্থাৎ আমাদের এই নির্দেশটি পুরোপুরি মেনে চলো ৷ কখনো যেন তোমাদের ভিন্নরকম আচরণ না দেখা যায় ৷ তোমাদের কাউকে যেন নির্দিষ্ট দিকের পরিবর্তে কখনো অন্য দিকে মুখ করে নামায পড়তে দেখা না যায় ৷ অন্যথায় শত্রুরা তোমাদের বিরুদ্ধে এই মর্মে অভিযোগ করার সুযোগ পাবে : আহা, কী চমৎকার 'মধ্যপন্থী উম্মাত' !এরাই হয়েছে আবার সত্যের সাক্ষী! এরা মুখে বলে , এই নির্দেশটি আমাদের রবের পক্ষ থেকে এসেছে কিন্তু কাজের সময় এর বিরুদ্ধাচরণ করছে ৷
১৫১. এখানে অনুগ্রহ বলতে নেতৃত্ব বুঝানো হয়েছে ৷ বনী ইসরাঈলদের থেকে কেড়ে নিয়ে এই নেতৃত্ব উম্মাতে মুসলিমাকে দেয়া হয়েছিল ৷ আল্লাহ প্রণীত বিধান অনুযায়ী একটি উম্মাতকে দুনিয়ার জাতিসমূহের নেতৃত্বের আসনে অধিষ্ঠিত করা এবং মানবজাতিকে সৎকর্মশীলতা ও আল্লাহর ইবাদাতের পথে পরিচালিত করার দায়িত্বে তাকে নিয়োজিত করা ছিল তার সত্যানুসারিতার চরম পুরস্কার ৷ এই নেতৃত্বের দায়িত্বে যে উম্মাতকে দেয়া হয়েছে তার ওপর আসলে আল্লাহর অনুগ্রহ ও নিয়ামত পরিপূর্ণ করা হয়েছে ৷ আল্লাহ এখানে বলছেন, কিব্‌লাহ পরিবর্তনের এ নির্দেশটি আসলে এই পদে তোমাদের সমাসীন করার নিশানী ৷ কাজেই অকৃতজ্ঞতা ও নাফরমানীর প্রকাশ ঘটলে যাতে এ পদটি তোমাদের থেকে ছিনিয়ে না নেয়া হয় সে জন্যও তোমাদের আমার এই নির্দেশ মেনে চলা দরকার ৷ এটা মেনে চললে তোমাদের প্রতি এই নিয়ামত ও অনুগ্রহ পরিপূর্ণ করে দেয়া হবে ৷
১৫২. অর্থাৎ এই নির্দেশ মেনে চলার সময় মনে মনে এই আশা পোষণ করতে থাকো ৷ এটা একটা রাজকীয় বর্ণনাভংগী মাত্র ৷ বিপুল ক্ষমতার অধিকারী বাদশাহর পক্ষ থেকে যখন তাঁর কোন চাকরকে বলে দেয়া হয় , বাদশাহর পক্ষ থেকে অমুক অমুক অনুগ্রহ ও দানের আশা করতে পারো , তখন কেবলমাত্র এতটুকু ঘোষণা শুনেই সংশ্লিষ্ট চাকর বা রাজকর্মচারী তার গৃহে আনন্দ-উল্লাস করতে পারে এবং লোকেরাও তাকে মোবারকবাদ দিতে পারে ৷